যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ককে প্রত্যাহারের দাবিতে সাংবাদিকদের স্মারকলিপি

এখন সময়: মঙ্গলবার, ২৫ জুন , ২০২৪, ০২:১৯:২৪ এম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: তিন সাংবাদিক লাঞ্ছিতের ঘটনার প্রতিবাদে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক হারুন-অর-রশীদকে প্রত্যাহারের দাবিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেয়া হয়েছে। বুধবার জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে এই স্মারকলিপি দেন সাংবাদিকরা। স্মারকলিপি গ্রহণ করেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক  রফিকুল হাসান।

যশোরের সাংবাদিকদের সাতটি সংগঠনের দেয়া স্মারকলিপিতে অবিলম্বে জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক হারুন-অর-রশীদকে প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়েছে। এর আগে গত মঙ্গলবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সাতটি সংগঠনের যৌথসভায় হাসপাতালটির তত্ত্বাবধায়ককে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে আরো রয়েছে, আগামী ৩ সেপ্টেম্বর সরকারি সফরের সময় যশোর জেনারেল হাসপাতালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক আসলে কালো পতাকা প্রদর্শন ও মানববন্ধন।

স্মারকলিপি দেয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, সহসভাপতি ওহাবুজ্জামান ঝণ্টু ও নূর ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমান, যশোর সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি ও দৈনিক কল্যাণ সম্পাদক  বীরমুক্তিযোদ্ধা একরাম-উদ-দ্দৌলা, সাধারণ সম্পাদক মবিনুল ইসলাম মবিন ও কোষাধ্যক্ষ দৈনিক স্পন্দনের নির্বাহী সম্পাদক মাহাবুব আলম লাবলু, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মনোতোষ বসু ও সাধারণ সম্পাদক এইচআর তুহিন, সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সভাপতি আকরামুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক এসএম ফরহাদ, যশোর জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শেখ দিনু আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মোর্শেদ আলম, টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন যশোরের আহবায়ক সাকিরুল কবীর রিটন ও সদস্য সচিব শিকদার খালিদ, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন যশোর জেলা শাখার সভাপতি গোপীনাথ দাস ও সাধারণ সম্পাদক এমআর খান মিলন। এছাড়া প্রেসক্লাবসহ ৭টি সংগঠনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ২৭ আগস্ট সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক হারুন-অর-রশীদের কাছে হন প্রেসক্লাব যশোরের সহ-সভাপতি ও বিটিভি’র জেলা প্রতিনিধি ওহাবুজ্জামান ঝন্টু এবং একাত্তর টিভি’র জেলা প্রতিনিধি ও সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সাধারণ সম্পাদক এসএম ফরহাদ ও তার ক্যামেরাম্যান শাহারুল ইসলাম ফারদিন। এদিন দুপুরে তত্ত্বাবধায়ককে টেলিফোনে ডেঙ্গু সংক্রান্ত তথ্য জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিক এস এম ফরহাদকে তার দপ্তরে গিয়ে তথ্য সংগ্রহের পরামর্শ দেন। এরপর ফরহাদসহ তিন সাংবাদিক সেখানে গেলে তত্ত্বাবধায়ক তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন। একপর্যায়ে তিনি ক্যামারাম্যান ফারদিনকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেয়ার চেষ্টা করেন। সেখানে উপস্থিত অপর দুই সাংবাদিক তাকে নিবৃত করার চেষ্টা করলে হাসপাতাল তত্ত্ব¡াবধায়ক তাদের সাথেও অশোভন আচরণ করেন।