২০২৪-২৫ অর্থবছরে ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা

এখন সময়: শুক্রবার, ১৪ জুন , ২০২৪, ০৬:০৪:৩৩ এম

 

 স্পন্দন ডেস্ক: অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী আগামী ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জন্য ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছেন। তিনি বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করেন।

প্রস্তাবিত বাজেটের আকার ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা, যা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ১৪.২ শতাংশ এবং চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের চেয়ে চার দশমিক ছয় শতাংশ। এটি দেশের ৫৩তম, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের ২৫তম ও অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর প্রথম বাজেট।

বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা থাকছে ৫ লাখ ৪১ হাজার কোটি টাকা। বাকি ২ লাখ ৫৬ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা থাকবে। ২ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) ইতোমধ্যে অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

প্রস্তাবিত বাজেটে জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

এরআগে, মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠকে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেট অনুমোদন করা হয়েছে।

জাতীয় সংসদ ভবনের মন্ত্রিসভা কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অর্থমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, মন্ত্রিসভার অন্যান্য মন্ত্রী এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিমন্ত্রীরা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ২০০৯ সাল থেকে গত ১৫ বছরে সরকারের অগ্রগতির সংক্ষিপ্ত চিত্র তুলে ধরেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিকাল ৩টায় সংসদের বৈঠক শুরুর পর অর্থমন্ত্রী বাজেট উপস্থাপন শুরু করেন। ১ ঘণ্টা ৩৫ মিনিটের বাজেট বক্তৃতায় তিনি সরকারের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরার পাশাপাশি আগামী অর্থবছরের কর্মযজ্ঞের কথা তুলে ধরেন।

অর্থমন্ত্রী তার বক্তব্যে যেসব উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেছেন তা হলো-

#    গত দেড় দশকে মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপি’র গড় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬.৭ শতাংশের বেশি।

#    দারিদর্্েযর হার ১৮.৭ শতাংশে এবং অতি দারিদর্্েযর হার ৫.৬ শতাংশে নেমে এসেছে।

#    বিদ্যুৎ খাতে উৎপাদন সক্ষমতা ২০০৯ সালের ৪ হাজার ৯৪২ মেগাওয়াট থেকে ৬ গুণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ২৭৭ মেগাওয়াটে।

  #    সরকারি হাসপাতালের শয্যা সংখ্যা দ্বিগুণ বেড়ে ৭১ হাজারে এবং সরকারি ডাক্তারের সংখ্যা ৩ গুণ বেড়ে ৩০ হাজার ১৭৩ জনে উন্নীত হয়েছে।

  #    কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করা হয়েছে ১৪ হাজার ৩১১টি।

   #   স্বাক্ষরতার হার ৪৫ শতাংশ থেকে ৭৬.৮ শতাংশে, প্রাথমিক শিক্ষায় মেয়েদের অংশগ্রহণ ৫৪ শতাংশ থেকে ৯৮.২৫ শতাংশে এবং কারিগরি শিক্ষায় ভর্তির হার ০.৮ শতাংশ থেকে ১৭.৮৮ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

    #  মহাসড়কের পরিমাণ প্রায় ৩ গুণ বেড়ে ৩২ হাজার ৬৭৮ কিলোমিটারে এবং গ্রামীণ সড়ক প্রায় ৭৬ গুণ বেড়ে ২ লাখ ৩৭ হাজার ৪৪৬ কিলোমিটারে উন্নীত হয়েছে।

    #  নির্মিত হয়েছে পদ্মা ব্রিজ, মেট্রোরেল, বঙ্গবন্ধু টানেল ইত্যাদি মত গর্ব করার অবকাঠামো।

   #   মোট রেলপথ ২ হাজার ৩৫৬ কিলোমিটার থেকে দেড় গুন বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৩ হাজার ৪৮৬ কিলোমিটার।

   #   ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা মোট জনগোষ্ঠীর ০.২৩ শতাংশ থেকে বেড়ে ৭৮.৫৫ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

  #    শিক্ষার মান নিশ্চিতকরণে এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে ২ লাখ ৩৮ হাজার ৫৭৯ জন শিক্ষক নিয়োগসহ সহকারী শিক্ষকের ২৬ হাজার ৩৬৬টি নতুন পদ সৃষ্টি।

   #   প্রবাস আয় ১০.৯৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে ২১.৬১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীতকরণ।

   #   গ্যাসের উৎপাদন দৈনিক ১ হাজার ৭৪৪ মিলিয়ন ঘনফুট থেকে ২ হাজার ১০০ মিলিয়ন ঘনফুটে উন্নীতকরণ।

উল্লেখ্য, জাতীয় সংসদে দেশের ৫৩তম এবং নিজের প্রথম বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। তিনি ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছেন। বাজেটের শিরোনাম ‘সুখী, সমৃদ্ধ, উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের অঙ্গীকার’। এটি দেশ পরিচালনায় আওয়ামী লীগ সরকারের ছয় মেয়াদের ২৬তম বাজেট।