শার্শায় আফিল জুট উইভিং মিলে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড, ১০০ কোটি টাকার ক্ষতি

এখন সময়: সোমবার, ৩০ জানুয়ারি , ২০২৩ ০১:২২:৪২ am

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের শার্শায় আফিল জুট উইভিং মিলস লিমিটেডে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার আনুমানিক দুপুর ১টার দিকে মিলের মধ্যে হঠাৎ আগুন ধরে যায়। মুহূর্তের মধ্যে  আগুন ছড়িয়ে পড়ে মিলটি ভস্মীভুত হয়। আগুনের লেলিহান শিখায় পুরো ভবন মেশিন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। খবর পেয়ে যশোর, ঝিকরগাছা ও বেনাপোলসহ ৭টি ফায়ার সার্ভিস ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে মিল শ্রমিকদের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে। তবে ততক্ষণে আগুনে পুড়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়। সবমিলিয়ে আনুমানিক ১০০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

আফিল জুট উইভিং মিলস লিমিটেডের ব্যবস্থাপক (উৎপাদন) কবির উজ্জামান জানান, আনুমানিক দুপুর ১টার দিকে সম্ভবত শর্ট সার্কিটের মাধ্যমে মিলে আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৭টি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আগুন নেভানোর কাজ চলছিল। প্রাথমিকভাবে সবমিলিয়ে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আনুমানিক ১০০ কোটি টাকা। বেনাপোল ফায়ার ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক মনোরঞ্জন অগ্নিকান্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আগুনের খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে কাজ শুরু করি। পরে অন্য ফায়ার স্টেশনের কর্মীরা এসে আমাদের সঙ্গে যোগ দেন। তিনি বলেন, ফায়ার সার্ভিসের সাতটি ইউনিট দুই ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

তিনি বলেন, তদন্ত না করে ক্ষয়ক্ষতির হিসাব বলা না গেলেও শতকোটি অনুমান করা হচ্ছে। প্রচুর পাট পুড়ে গেছে। মেশিনপত্র পুড়ে নষ্ট হয়েছে। তবে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

এদিকে মিলে অগ্নিকান্ডের খবর শুনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন শার্শা উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নারায়ন চন্দ্র পাল, নাভারণ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান, শার্শা থানার ওসি মামুন খান, বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি কামাল হোসেন ভূইয়াসহ ফায়ার সার্ভিসের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।