❒আয় বহির্ভুত সম্পদ অর্জনের মামলা

যশোর বোর্ডের সাবেক হিসাব সহকারী আব্দুস সালামসহ তিনজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

এখন সময়: রবিবার, ১৪ জুলাই , ২০২৪, ০৭:৫১:৩৭ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক: আয় বহির্ভুত সম্পদ অর্জনের মামলায় যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের সাবেক হিসাব সহকারী আব্দুস সালামসহ তিন জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট জমা দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মামলার তদন্ত শেষে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের সহকারী পরিচালক মোশাররফ হোসেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদকের পিপি সিরাজুল ইসলাম।

অপর দুই অভিযুক্ত আসামিরা হলো, আব্দুস সালামের স্ত্রী রিক্তা খাতুন ও ভাই শহিদুল ইসলাম। অভিযুক্তদের বাড়ি যশোর উপশহরের ই-ব্লক এলাকায়।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, আব্দুর সালাম যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের হিসাব সহকারী ছিলেন। তিনি দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন বলে অভিযোগ পেয়ে অনুসন্ধানে নামে দুদক। দুদকের অনুসন্ধানে আব্দুল সালাম ও তার স্ত্রী এবং ভাইয়ের নামে পৌনে ১ কোটি টাকার স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদের সন্ধান পাওয়া যায়। এর মধ্যে উপশহরের ই-ব্লকে ১৪৪ বর্গগজ জমি ও সদর উপজেলার মহাদেবপুর গ্রামে ৭১ শতক জমি আব্দুস সালাম নিজ নামে ও তার স্ত্রী রিক্তা খাতুনের নামে কিনেছেন।

শহরের বেজপাড়ায় স্ত্রী রিক্তা খাতুনের নামে ৪ দশমিক ৪৭৩ শতক জমি কিনে সেখানে ফ্ল্যাট নির্মাণাধীন রয়েছে। উল্লিখিত জমি কেনায় ও ফ্ল্যাট নির্মাণে আব্দুস সালাম নিজে অর্থ ব্যয় করেছেন। উপশহর ই-ব্লকে আব্দুস সালাম ও তার ভাই শহিদুল ইসলামের নামে থাকা শূন্য দশমিক শূন্য ১৭৬ শতক জমিতে ৬ তলার ভিতে এ পর্যন্ত ৪ তলা পর্যন্ত নির্মাণ করা হয়েছে। এসব কাজে আব্দুস সালাম নিজেই সব টাকা ব্যয় করেছেন। এসব জমি কিনতে ও বিল্ডিং নির্মাণে আব্দুস সালামের ব্যয় হয়েছে ৭৭ লাখ ৭০ হাজার ৮১৫ টাকা।

অনুসন্ধান শেষে আয় বহির্ভুত সম্পদ অর্জনের অভিযোগের সত্যতা পেয়ে আব্দুস সালামকে আসামি করে ২০২৩ সালের ৩০ জুলাই দুদক কার্যালয়ে মামলা করেন সংস্থার সহকারী পরিচালক মোশাররফ হোসেন। এরপর মামলার দীর্ঘ তদন্ত শেষে আয় বহির্ভুত সম্পদ অর্জনের সত্যতা পাওয়ায় বর্তমানে চাকরিচ্যুত আব্দুস সালাম ও স্ত্রী রিক্তা খাতুন এবং ভাই শহিদুল  ইসলামকে অভিযুক্ত করে  আদালতে চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।