ঈদ বাজার

নতুন পোশাকের সাথে মানানসই ও ফ্যাশনেবল জুতা-স্যান্ডেল

এখন সময়: শুক্রবার, ২১ জুন , ২০২৪, ১০:২৪:০২ পিএম

মারুফ কবীর: ঈদ আনন্দ বাড়িয়ে দিতে নতুন পোশাকের বিকল্প নেই। তেমনি নতুন পোশাকের সঙ্গে একজোড়া নতুন জুতা না থাকলে পুরো সাজটাই নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই পোশাকের সাথে অবশ্যই মানানসই ও ফ্যাশনেবল জুতা পরতে হবে। পাদুকা ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রচন্ড গরমের কারণে  বাজারে ক্রেতা কিছুটা কম। সকালের দিকে গ্রামের কাস্টমার আসেন। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ক্রেতার উপস্থিতি কমে যায়। তবে ইফতারের পর বিশেষ করে শহরের কাস্টমারের পদচারনায় মুখর হয়ে ওঠে ঈদ বাজার। পছন্দের ডিজাইনের খোঁজে তাই সকলেই ছুটছেন জুতার দোকানগুলোতে। দেশীয় ব্রান্ড, নামিদামি ব্র্যান্ড কিংবা ফুটপাতের দোকান সবখানেই ক্রেতা আছে। সোমবার যশোর শহরের লিবার্টি, স¤্রাট, প্রাইম , বিউটি , বাটা , লোটো, এপেক্সসহ অন্যান্য জুতার দোকানে দেখা যায় ঈদ উপলক্ষে কেনাকাটার ব্যস্ততা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, গরমের কারণে কিছুটা অসুবিধা হলেও এ বছর জুতা বেচাকেনা বেশ ভালো। ঈদের আগের দিন মধ্য রাত পর্যন্ত চলবে জুতা-স্যান্ডেলের বিক্রি। কিডস, জেন্টস, লেডিস সব ক্যাটাগরির জুতাই ভালো সেল হচ্ছে। ক্রেতাদের চাহিদা পছন্দ আর সাধ্যের কথা মাথায় রেখে দেশী-বিদেশী বিভিন্ন ডিজাইনের জুতা বাজারে এনেছে উৎপাদনকারী ও আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলো। এবার গরম মৌসুমে ঈদ হওয়ায় কথা মাথায় রেখে জুতোর ডিজাইন করা হয়েছে। নানা রং আর বাহারি ডিজাইনের এ সব জুতো-স্যান্ডেলের খোঁজে ফ্যাশনসচেতন তরুণী ও শিশুসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষ ছুটছেন জুতার দোকানে। অন্যদিকে অভিজাত জুতার দোকানগুলোর পাশাপাশি ফুটপাতের দোকানগুলোতেও ভালো বেচাকেনা হচ্ছে। জেস টাওয়ারের সাক্ষর সুর প্রোপাইটর মাহাফুজুর রহমান নিপু বলেন, নিত্যপণ্যের দাম বেশি। যার প্রভাব পড়েছে বাজারে। তাছাড়া প্রচণ্ড গরমের কারণে বাজারের কাষ্টমার কিছুটা কম। এবছর দেশি ব্রান্ডের পাশাপাশি চায়না জুতার চাহিদা ও বিক্রি বেশি। আরামদায়ক ও ফ্যাশানেবল হওয়ায় চায়না জুতা-স্যান্ডেল বেশি কিনছেন সব শ্রেণীর ক্রেতা। প্রাইম সুর বিক্রয় কর্মী জুলফিকার বলেন, প্রতিটি শোরুমে আলাদা করে রয়েছে শিশুদের জুতা-স্যান্ডেলের কর্ণার। ঈদে অন্যান্য জিনিসের চেয়ে জুতোর প্রতি সব শ্রেণীর মানুষের রয়েছে বাড়তি আকর্ষণ। আর দীর্ঘ প্রত্যাশিত ঈদে পায়ে নতুন জুতো থাকবে না তা তো কল্পনাই করা যায় না। পাদুকা ব্যবসায়ী মহব্বত আলী বলেন, সারা বছরের লাভের বড় একটি অংশ আসে ঈদকে ঘিরে। লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হবে বলে আশা করছি। এইচ এম রোডের বাটা শোরুমের বিক্রয় কর্মী সুমন বলেন, নারীদের পছন্দের তালিকায় বয়েছে কমফিট স্যান্ডেল। বাটা নিজস্ব ব্র্যান্ডের পাশাপাশি এ বারের ঈদে এসেছে নর্থস্টার, মেরিফ্লেয়ার প্রভৃতি।  এ বারের ঈদে সব বয়সের বাচ্চাদের জুতো-স্যান্ডেল ৪শ’ থেকে ১৫শ’ টাকার পাওয়া যাচ্ছে। মেয়েদের ডিজাইনভেদে স্যান্ডেলের দাম ৫শ’ থেকে ৩ হাজার টাকা, সেমি হিলের দাম ১ থেকে ২ হাজার, থাই ড্রিম কালেকশন ৮শ’ থেকে ২ হাজার , টমি ১৫শ’ থেকে ২ হাজার , নাইট ঝুম ২ হাজার থেকে ২৫শ’ টাকা, স্টিলেটো ১ থেকে ৩ হাজার, চায়না ছেলেদের স্যান্ডেল ১ থেকে ৩ হাজার, মেয়েদের স্যান্ডেল ১ থেকে সাড়ে ৩ হাজার এবং বাচ্চাদের স্যান্ডেল ৫শ’ থেকে ১৫শ’ টাকা। ছেলেদের লোফার ১ থেকে ৪ হাজার টাকা।