সাড়াপোল রুপদিয়ায় কৌশলে মাদক বেচাকেনা

এখন সময়: বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন , ২০২৪, ০৭:০৮:৩৩ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর সদর উপজেলার চাঁচড়া ইউনিয়নের সাড়াপোল রুপদিয়া এলাকায় কৌশলে বিভিন্ন প্রকার মাদক বেচাকেনা হচ্ছে দেদারছে। হাত বাড়ালেই গাঁজা, ইয়াবাসহ নানা প্রকার মাদক দ্রব্য পাওয়া যায়। কতিপয় চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী বিভিন্ন পেশার আড়ালে এই মাদক কেনাবেচা করে বলে অভিযোগ রয়েছে।
ওই এলাকা চাঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা মাঝে মধ্যে অভিযান চালায়। আটক করে মাদকসহ আসামি। কিন্তু মাদক কেনাবেচা বন্ধ হচ্ছে না।
গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে চাঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির এসআই তরিকুল ইসলাম অভিযান চালিয়ে
মাহিদিয়া মুন্সিপাড়া থেকে ২৩ পিস ইয়াবাসহ আব্দুল আওয়াল নামে এক যুবককে আটক করে। আওয়াল মণিরামপুর উপজেলার খাটুরা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে। তাকে দিয়ে
রুপদিয়া বাজারের চা দোকানদার খলিল মাদক ব্যবসা করায়। আটকের পর আওয়াল ওই খলিলের নাম বলে। পুলিশ তার নাম পাওয়ার পর খলিলকে ধরতে তার দোকানে অভিযান চালালে আগে থেকেই সে সটকে পড়ে। পুলিশ তাকে খুঁজে বেড়াচ্ছে।
এলাকাবাসী জানিয়েছে, সাড়াপোল রুপদিয়ায় মাদক বেচাকেনা নানা কৌশলে। গ্রামের বাইরে থেকে মাদক ব্যবসায়ীরা মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে মাদক দিয়ে যায়। আবার খদ্দেররা মোবাইল ফোনে যোযোগ করে মাদক কিনে নিয়ে যায়। অনেকে ভ্যান, ইজিবাইক চালায়। আবার ক্ষেতে খামারে কাজ করে। এসব কাজের আড়ালে বিক্রি করে মাদক দ্রব্য। রপদিয়া কলোনীপাড়ার ভ্যান চালক শাহাবুদ্দিন ওরফে ঘুঘুকে খোলা চোখে দেখে বোঝা যাবে না যে সে মাদক ব্যবসা করে। কিন্তু ভ্যান চালিয়ে আড়ালে গাঁজা বিক্রি করে থাকে। আবার কখনো ডাব বিক্রির আড়ালে বিক্রি করে মাদক। বাজারের আশপাশে, আম-কাঁঠালের বাগানের মধ্যে বিক্রি হয় মাদক। ওই গ্রামের ১০/১২ জন মাদক কেনা বেচার সাথে যুক্ত। সচারচর পুলিশি অভিযান না থানায় মাদক কারবারিরা ওই বাজারকে বেছে নিয়েছে। অনেকে মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করলে মাদক ব্যবসায়ীরা নানা হুমকি দিয়ে থাকে। ফলে তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ গ্রামবাসী। গ্রামবাসির দাবি, প্রতিনিয়ত পুলিশি অভিযান থাকতে হবে গ্রামে। চিহ্নিতদের আটক করে আইনের আওতায় নিলে মাদক ব্যবসা বন্ধ হবে।