রামপালে ছিনতাই ও অপহরণকারী দলের নারী সদস্যসহ গ্রেফতার ৭

এখন সময়: মঙ্গলবার, ২১ মে , ২০২৪, ০৬:৪৮:২৩ এম

 

রামপাল প্রতিনিধি: বাগেরহাটের  রামপালে সংঘবদ্ধ ছিনতাই ও অপহরণকারী চক্রের নারী সদস্যসহ ৭ জ গ্রেফতার হয়েছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে আদিল মাহামুদ নামে এক ভুক্তভোগী রামপাল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ ওই রাতে অভিযান চালিয়ে চক্রের প্রধান ও এক নারী সদস্যসহ সাতজনকে গ্রেফতার করে। তাদের কাছ থেকে ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ও টাকা উদ্ধার করেছে। বুধবার তাদের আদালতে পাঠানো হয়। 

আটককৃতরা হলো, উপজেলার শ্রীফলতলা গ্রামের আত্মসমর্পণকৃত বনদস্যু রফিকুল ইসলামের ছেলে শাহীন শেখ (২২), একই গ্রামের আবুল হাসেম শেখের ছেলে আব্দুল্লাহ শেখ (২০), ইব্রাহিম মোল্লার ছেলে আসলাম মোল্লা আকাশ (২০), গোলাপ শেখের ছেলে ইমন শেখ (১৭), উজিরের ছেলে ফেরদৌস হাসান জয় (১৭), মৃত শহিদুল ইসলামের ছেলে রমজান শেখ (১৭) ও টিটু মোল্লার মেয়ে টিনা।

রামপাল -মোংলা সার্কেল এএসপি মুশফিকুর রহমান তুষার এবং রামপাল থানার ওসি (তদন্ত) বিধান চন্দ্র সাংবাদিকদের এক প্রেসব্রিফিং এ এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, বনদস্যু রফিকুল ইসলামের ছেলে শাহীন শেখ মোবাইল ফোন ব্যবহার করে কথিত প্রেমিকা টিনাকে সাথে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে একটি প্রতারক সিন্ডিকেট গড়ে তোলে। তারা ওই নারী সদস্যকে দিয়ে প্রেমের ফাঁদ পাতে। এক পর্যায়ে তারা রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের পাওয়ার মেক লিমিটেড কোম্পানির ম্যানেজার আদিল মাহামুদকে ট্রাপে ফেলে। ১৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় তার ব্যবহৃত মুঠোফোনে কল দেয়। ওই সময় তাকে খুলনা মোংলা মহাসড়কের ভেকটমারি বেলাই ব্রীজের কাছে যেতে বলে। আদিল মাহামুদ সেখানে গেলে তাকে বেঁধে মাহিন্দ্রা গাড়িতে করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। এরপর তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে মারপিট করে। এক পর্যায়ে আসামিরা তার কাছে থাকে নগদ টাকা, একটি টিভিএস মোটরসাইকেল, এটিএম কার্ড ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। এরপর তারা ভিকটিমের বাড়িতে ফোন করিয়ে কয়েক দফায় বিকাশ ও রকেট একাউন্টের মাধ্যমে প্রায় ৮০ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। একইদিন রাত সাড়ে ১০ টায় তাকে চোখ বেঁধে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে ছেড়ে দিয়ে আরও ৬ লক্ষ টাকা দাবি করে। ১৬ জানুয়ারি সকাল ৮ টায় ফয়লা স্ট্যান্ডে গিয়ে মাহিন্দ্রা চালককে চিনতে পেরে তার মাধ্যমে আসামিদের শনাক্ত করেন। এরপর ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয় ।

তবে এই ঘটনায় কয়েকজন পলাতক রয়েছে। এর সাথে আরও কেউ জড়িত আছে কি না সেটিও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানাগেছে।