ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

কাল খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, আবার মুখরিত হবে চিরচেনা ক্যাম্পাস

Published : Friday 10-September-2021 23:08:46 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ২২:৫৪:১১ pm

প্রস্তুত যশোরের ১৮১৯ স্কুল কলেজ মাদ্রাসা
মিরাজুল কবীর টিটো : প্রস্তুত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ১৮ মাস পর রোববার দেশের অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে  খুলছে যশোর জেলার  ১ হাজার ৮১৯ প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে ১ হাজার ২৮৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ৫৩৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়,কলেজ ও মাদ্রাসা। জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার একেএম গোলাম আযম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। দীর্ঘ বিরতির পর আবারো মুখরিত হবে ক্যাম্পাস। শিশুদের চিরচেনা কলকাকলিতে ভরে উঠবে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের আঙ্গিনা। দেড় বছর পর বন্দিদশা থেকে বাইরে এসে মুক্ত শ্বাস ফেলবে শিক্ষার্থীরা।
খোলার জন্য যশোরে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে নির্দেশনা বাস্তবায়নের নির্দেশ দিয়েছে যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান। বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা ও উপজেলা মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের সাথে অনুষ্ঠিত ভার্চুয়াল সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ নির্দেশ দেন।
করোনাভাইরাসের কারণে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষামন্ত্রণালয়। দীর্ঘ ১৮ মাস পর দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। তবে যুক্ত হয়েছে বিভিন্ন নির্দেশনা । নির্দেশনা গুলো হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রবেশমুখসহ অন্যান্য স্থানে কোডিড-১৯ অতিমারি সম্পর্কিত স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে করণীয় বিষয়গুলো ব্যানার বা অন্য কোনো উপায় প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রবেশ পথে সব শিক্ষক-কর্মচারী শিক্ষার্থী-অভিভাবকের তাপমাত্রা পরিমাপক যন্ত্রের মাধ্যমে নিয়মিত তাপমাত্রা মাপা ও তা পর্যবেক্ষণ করার ব্যবস্থা করতে হবে। শিক্ষার্থীদের ভিড় এড়ানোর জন্য প্রতিষ্ঠানের সবগুলো প্রবেশমুখ ব্যবহার করার ব্যবস্থা করা। যদি কেবল একটি প্রবেশমুখ থাকে সেক্ষেত্রে একাধিক প্রবেশমুখের ব্যবস্থা করার চেষ্টা করা , পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা, প্রতিষ্ঠান খোলার প্রথম দিনে শিক্ষার্থীদের আনন্দঘন পরিবেশে শ্রেণি কার্যক্রমে স্বাগত জানানোর ব্যবস্থা করতে হবে।
যশোর জেলা শিক্ষা অফিসার একেএম গোলাম আযম জানান, জেলার ৫৩৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়,কলেজ ,মাদ্রাসা পরিষ্কার,পরিচ্ছন্ন করা সহ সার্বিক ভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। আট উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো ভিজিট করে তথ্য নিশ্চিত করেছেন। রোববার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হলে কোন সমস্যা হবে না।
যশোর সরকারি বালিকা উচ্ছ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক লায়লা শিরিন সুলতানা জানান, বিদ্যালয় প্রতিদিন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা হচ্ছে। জীবানু নাশক ওষুধ ছিটানো হয়েছে। একই কথা বলেন যশোর জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আমজাদ হোসেন। তিনি বলেন জেলা ১ হাজার ২৮৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচ্ছন্ন করে প্রস্তুত রাখা আছে। প্রথম দিন শিক্ষার্থীদের ক্লাস করাতে  সমস্যা হবে না। তিনি আরো জানান শিক্ষকরা প্রতিদিনই বিদ্যালয়ে এসেছে। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। বিদ্যালয়গুলোতে থাকবে হ্যান্ডস্যানিটাইজার, স্প্রে, মাস্কের ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসানো ব্যবস্থা করা হবে।
এদিকে দুপুরে ভার্চুয়াল সভায় যশোর জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সায়েমুজ্জামান, জেলা শিক্ষা অফিসার (মাধ্যমিক) একেএম গোলাম আযম, জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আমজাদ হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক কলেজের অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেন, জিলা স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শোয়াইব হোসেন, যশোর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক লায়লা শিরিন সুলতানাসহ আট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা সংযুক্ত ছিলেন। সভায় বলা হয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে অভিভাবকরা যাতে করে সন্তানকে  শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়ে আসেন, এজন্য তথ্য অফিসের মাধ্যমে মাইকিং করার সিদ্ধান্ত হয়।
 



আরও খবর