ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর , ২০২১ ● ১১ কার্তিক ১৪২৮

৫ হাজার ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ শেষে ফ্রন্টলাইনার দেবদাস করোনা আক্রান্ত

Published : Saturday 24-July-2021 21:31:44 pm
এখন সময়: মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর , ২০২১ ১৪:০১:৩১ pm

মাগুরা প্রতিনিধি: ৮ থেকে ১০ বার পরীক্ষা করিয়াছেন বোঝার জন্য তিনি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন কিনা। প্রতিবারই পরীক্ষায় নেগেটিভ এলেও এবার এসেছে পজেটিভ। আক্রান্ত হয়েছেন করোনাভাইরাসে। এবার আর এই ভাইরাসটি ছাড় দেয়নি তাকে। মাগুরা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট দেবদাস মন্ডল অনেকটা সুস্থ আছেন বিষয়টা নিশ্চিত করেছেন তিনি নিজেই। যিনি ইতোমধ্যে প্রায় ৫ হাজার ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করেছেন। ছুটে বেড়িয়েছেন জেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। কখনো মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ,কখনো বা জেলা সদর হাসপাতালে। আবার ফোন পেয়ে ছুটে গিয়েছেন অসুস্থ ব্যক্তির বাড়িতে। এভাবেই বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের শুরু থেকেই তিনি বিভিন্ন ব্যক্তির স্যাম্পল নিয়েছেন। আর সেই স্যাম্পল থেকে পরীক্ষা নিয়ে কেউ আক্রান্ত হয়েছেন করোনাভাইরাসে। কেউবা নেগেটিভ হয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন।  আবার এর ভিতর ঘাতক এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কেউ পাড়ি জমিয়েছেন পরপারে। তবে থেমে থাকেননি দেবদাস মন্ডল। তবে এবার কিছুদিনের জন্য থামতে হলো তাকে। কেননা এবার এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। তবে আবারো সুস্থ হয়ে ফিরে আসতে চান তার কর্মস্থলে। চান আরও অসুস্থ মানুষের স্যাম্পল নিয়ে কাজ করতে। আর এর জন্য সকলের দোয়াা চেয়েছেন তিনি। দেবদাস মন্ডল বলেন, গত বৃহস্পতিবার প্রতিদিনের মত কাজ শেষ করে শরীরে কিছুটা ব্যাথা ও জ্বর অনুভব করি আমি। রাতে নিজেই পরীক্ষা করি। তখন কিছুটা আক্রান্তের আভাস পাই। পরে শুক্রবার সকালে আমার সহকর্মীর মাধ্যমে পরীক্ষা করে আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত হই। এই মুহূর্তে কিছুটা জ্বর আছে। এছাড়া রয়েছে গায়ে প্রচণ্ড ব্যাথা। বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছি আমি। জেলার সিভিল সার্জন ডা. শহিদুল্লাহ দেওয়ান খোঁজখবর নিচ্ছেন। আমার চিকিৎসার জন্য জেলার প্রায় সকর ডাক্তার খোঁজখবর নিচ্ছে এবং পরামর্শ দিচ্ছেন।

জেলার সিভিল সার্জন ড. শহীদুল্লাহ বলেন, দেবদাস ছেলেটি খুবই পরিশ্রমী ও সাহসী ছিল। সে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেও তার শারীরিক অবস্থা বেশ ভালো আছে। আমি নিজে তার চিকিৎসার ব্যাপারে দেখভাল করছি। আশা করছি সে দ্রুতই সুস্থ  হয়ে আবারও কাজে যোগ দেবে। এছাডা তার অবর্তমানে তারই ট্রেনিং দেয়া বেশ কয়েকজনকে দিয়ে আমরা স্যাম্পল কালেকশন এর কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। ইতোমধ্যে মাগুরা ১ আসনের সংসদ সদস্যের পক্ষে তার খোঁজ খবর নিয়েছেন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও হটলাইন টিমের সমন্বয়ক ফজলুর রহমান। দেবদাস মন্ডলের বাড়িতে দেশি ফলমূল ও খাবার পৌঁছে দেন তিনি। এছাড়া তার চিকিৎসার প্রয়োজনে যা কিছু করার প্রয়োজন সে সকল ব্যবস্থাও করা হবে বলে তাকে সাংসদের পক্ষে আশ্বস্ত করেন।

উল্লেখ্য ২০০৮ সালে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টের চাকরিতে আসেন দেবদাস মণ্ডল। তার বাড়ি মাগুরা সদর উপজেলার মৃগিডাঙা গ্রামে। দুই সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে ভাড়া থাকেন শহরের হাসপাতাল পাড়ায়। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে করোনাভাইরাসের নমুনা সংগ্রহের  ট্রেনিং নেন তিনি। এর পর গত বছর ৩ এপ্রিল মহম্মদপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তি মারা যান, তাকে দিয়েই নমুনা সংগ্রহ শুরু করেন তিনি। এরপর ওই বছর ৬ জুলাই শহরের আদর্শপাড়ায় যে অন্তঃসত্ত্বা নারী মারা গেলেন, তার নমুনাও সংগ্রহ করেন তিনি। এভাবে জেলায় আক্রান্তদের একটি বড় অংশের নমুনা  সংগ্রহ করেন দেবদাস মণ্ডল।



আরও খবর