ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ সোমবার, ২৫ অক্টোবর , ২০২১ ● ১০ কার্তিক ১৪২৮

যশোর আইনজীবী সমিতির দুই সদস্যের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা

Published : Sunday 05-September-2021 21:49:57 pm
এখন সময়: সোমবার, ২৫ অক্টোবর , ২০২১ ০৯:১৬:১৪ am

# বিক্ষোভ সমাবেশ, আসামি আটকে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর জেলা আইনজীবী সমিতির দুই সদস্যের ওপর হামলা মারপিট ও টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগে কোতয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। মামলাটি করেছেন জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য শহীদ আনোয়ার পাভেল। আসামি করা হয়েছে পোস্ট অফিস পাড়ার মৃত মঈন উদ্দিনের ছেলে মাসুম আহম্মেদ শ্যামলকে।

এদিকে, এ ঘটনার প্রতিবাদে একট্টা হয়েছে যশোরের আইনজীবীরা। রোববার তারা বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে । প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে মামলার আসামি শ্যামলকে আটকে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে। অন্যথায় কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন তারা।

সকাল ১০ টায় যশোর জেলা আইনজীবী সমিতির ১ নম্বর ভবনের সামনে থেকে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি কাজী ফরিদুল ইসলামের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়। মিছিলটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সামনে এসে শেষ হয়। এরপর আদালতের ফটকের সামনে শুরু হয় প্রতিবাদ সমাবেশ।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সিনিয়র আইনজীবী মোহাম্মদ ইসহক, শরিফুল ইসলাম মিলন, পিপি এম ইদ্রিস আলী, আমিনুর রহমান হিরু, আবু মোর্তজা ছোট, এম এ গফুর প্রমুখ।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহানুর আলম শাহীন।

মামলায় পাভেলের অভিযোগ, জজ কোর্ট মোড়ের তাসনিন প্লাজা নামে একটি ভবনে তার অফিস রয়েছে। সেই ভবনের দোতলায় সিনিয়র আইনজীবী খালেদ হাসান জিউসের জুনিয়র হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে তিনি আইন পেশার কাজ করে আসছেন। আসামি মাসুম ওই ভবন থেকে তাদেরকে অবৈধভাবে সন্ত্রাসী কায়দায় উচ্ছেদের চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন। বিষয়টি নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে মনোমালিন্য চলে আসছিল। এর মধ্যে গত ২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে তিনি ও তার সিনিয়র খালিদ হাসান তাদের অফিস রুমে বসে ছিলেন। ওই সময় মাসুমের নেতৃত্বে ৯/১০ জনের একদল লোক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয় তাদের অফিসে হামলা চালায়। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। এ সময় শহীদ আনোয়ার পাভেল বাধা দিলে তাকে মারপিট করে তারা। এরপর শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালায়। তখন সিনিয়র আইনজীবী জিউস এগিয়ে আসলে তাকে খুন করার উদ্দেশ্যে মাসুম ছুরি দিয়ে জখম করে। ওই সময় আইনজীবী সহকারী সুজিত চন্দ্র পাল ঠেকাতে গেলে তাকেও জখম করা হয়। আসামিরা তাদের চেম্বারের ড্রয়ারে থাকা এক লাখ ১০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় বলে মামলায় উলে­খ করা হয়েছে। এ সময় তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে মাসুমসহ অন্যরা প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চলে যায়।

এ বিষয়ে কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ তাজুল ইসলাম বলেন আইনজীবীদের দেয়া অভিযোগ এজাহার হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে।