ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ শুক্রবার, ১৪ মে , ২০২১ ● ৩১ বৈশাখ ১৪২৮

যশোরে কোভিড রোগীদের শয্যা ১০৮, নেই আইসিইউ

Published : Sunday 11-April-2021 21:43:16 pm
এখন সময়: শুক্রবার, ১৪ মে , ২০২১ ১৪:০৩:৪৯ pm

বিল্লাল হোসেন : যশোরে কোভিড-১৯ নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দ্রুত হারে বেড়ে চলেছে। রোববারও জেলায় নতুন করে ৬৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এই নিয়ে গত ১০ দিনে রোগী  শনাক্ত হয়েছে ৫শ’ ৯০ জন। সেই হিসেবে আক্রান্তের হার দাঁড়াচ্ছে ৫৯ শতাংশ। এদিকে, রোগীর সংখ্যা বাড়ার তুলনায় হাসপাতালে শয্যার সংখ্যা কম। করোনা রোগীর চিকিৎসার জন্য যশোরের বিভিন্ন হাসপাতালে ১০৮ টি শয্যা রয়েছে। নেই কোন আইসিইউ।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানিয়েছে, গত  ১০ দিনে শনাক্ত ৫শ ৯০ জনের মধ্যে ১১ এপ্রিল ৬৮ জন, ১০ এপ্রিল ৭০ জন, ৯ এপ্রিল ৩১ জন, ৮ এপ্রিল ৬২ জন, ৭ এপ্রিল ৭৪ জন, ৬ এপ্রিল ৪৯ জন, ৫ এপ্রিল ৪৯ জন, ৪ এপ্রিল ৭৫ জন, ৩ এপ্রিল ৭৪ জন ও ১ এপ্রিল ৩৮ জন। আর ১ এপ্রিল ৩ জনের নমুনা পরীক্ষার সবগুলো ফলাফল ছিলো নেগেটিভ। সূত্রটি আরও জানায়, জেলায় করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ১০৮ শয্যার মধ্যে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ৪০ টি, বক্ষব্যাধি হাসপাতালে ২৮ টি, অভয়নগর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০ টি, শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫ টি, ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫ টি, চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫ টি, বাঘারপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫ টি, মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫ টি ও কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫ টি। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে এক চিকিৎসক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, প্রতিদিন করোনার প্রকোপ বাড়ছে। সেই তুলনায় যশোেের বর্তমান পরিস্থিতি টপকিয়ে আরও ভয়াবহ পরিস্থিতি আসতে পারে। রোগীর তুলনায় শয্যা একেবারেই কম। আক্রান্তদের শারীরির অবস্থার অবনতি হলে হোমআইসোলেশন থেকে হাসপাতালে এসে রোগীরা শয্যা পাবে না।  বিষয়টি চিন্তা করে যশোর জেলায় করোনা রোগীদের জন্য শয্যা বাড়ানো উচিৎ। তা না হলে হঠাৎ করে হাসপাতালে করোনা রোগী বেড়ে গেলে বিপাকে পড়তে হবে। তবে বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় ১০৮ শয্যা যথেষ্ট। সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা ডা.রেহনেওয়াজ জানান, রোববার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টারে ২২৩ টি নমুনা পরীক্ষায় ৫৪ জনের ফলাফল পজেটিভ শনাক্ত হয়। এছাড়া খুলনা মেডিকেল কলেজ ল্যাব থেকে পাঠানো ৮ জনের নমুনা পরীক্ষার সবগুলো নেগেটিভ এসেছে। আর যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ৪৪ জনের র‌্যাপিড এন্টিজেন পরীক্ষায় ১৪ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়। সব মিলিয়ে রোববার যশোরে ৬৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। তবে ফলাফল দেরিতে আসার কারণে কোন উপজেলায় কতোজন তা হিসাব করা সম্ভব হয়নি। ডা. রেহেনেওয়াজ আরও জানান,  দ্বিতীয় ডোজের ৩য় দিনে টিকা গ্রহণকারী ২৬শ’ ৬৫ জনের মধ্যে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের ৮টি কেন্দ্র থেকে ৫৫৫ জন, মেডিকেল কলেজ কেন্দ্র থেকে ২৬৫ জন, বিমান বাহিনীর কেন্দ্রে ৭৮ জন, যশোর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ৪টি কেন্দ্র থেকে ১৩০ জন, পুলিশ হাসপাতালের কেন্দ্র থেকে ৭৯ জন, শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ টি কেন্দ্রে থেকে ৪৩০ জন, ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ টি কেন্দ্র থেকে ১৮৩ জন,  চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ টি থেকে ১৪০ জন,  মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ টি কেন্দ্র থেকে ১৯৬ জন, কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ টি কেন্দ্র থেকে ৩২০ জন, বাঘারপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ টি কেন্দ্র থেকে ৫৯ জন ও  অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ টি কেন্দ্র ২৩০ জন। মোট ৭ হাজার ১শ’ ২৮ জনের মধ্যে পুরুষ ৫ হাজার ১ শ’ ৮০ জন ও মহিলা রয়েছেন ১৯৪৮ জন।

যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহিন জানিয়েছেন, ১১ এপ্রিল পর্যন্ত জেলায় ৩১ হাজার ৮শ’ ১৩ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পেয়েছি। তাতে ৫ হাজার ৬শ’ ১২ জন কোভিড-১৯ নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ৭৭ জন নারী পুরুষ। এর মধ্যে যশোরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও বাড়িতে মৃত্যু হয়েছে ৬৬ জনের। আর ঢাকায় ৬ জন খুলনায় ৪ জন ও সাতক্ষীরার হাসপাতালে মারা গেছেন ১জন। সুস্থ হয়েছেন ৪ হাজার ৯শ’১৭ জন। সিভিল সার্জন আরও জানান, করোনাভাইরাসের বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় চিকিৎসক সেবিকা ও অন্যান্য কর্মচারী ও হাসপাতাল সবকিছু প্রস্তুত রয়েছে। ১০৮ টি শয্যার বরাদ্দ থাকলেও হাসপাতালে  চিকিৎসাধীন রয়েছে ১৬ জন। আর ৫শ’৬২ জন নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তবে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বাড়লে শয্যাও বাড়ানো হবে। সকলকে মাস্ক ব্যবহারের পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান সিভিল সার্জনের।



আরও খবর