ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ রবিবার, ১৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ২ কার্তিক ১৪২৮

যশোরে একদিনে সর্বোচ্চ টিকা গ্রহণ: শনাক্তের হার ২২ শতাংশ, মৃত্যু ২

Published : Tuesday 10-August-2021 21:31:12 pm
এখন সময়: রবিবার, ১৭ অক্টোবর , ২০২১ ১৮:৩৬:৪০ pm

বিল্লাল হোসেন : যশোরে করোনার প্রতিষেধক টিকা গ্রহণে মানুষের আগ্রহ দিন দিন বাড়ছে। মঙ্গলবার জেলায় ৬ হাজার ৮৪১ জন টিকা নিয়েছেন। যা নিয়মিত টিকা প্রদানে একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যা। এ নিয়ে গত ১০ দিনে যশোরের নিয়মিত কেন্দ্র থেকে ৭১ হাজার ৯৫২ জন টিকা গ্রহণ করেছেন। এদিকে, গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমেছে। সোমবার সকাল ৮ টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮ টা পর্যন্ত যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের রেডজোনে করোনায় আক্রান্ত ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। ৬১১ নমুনা পরীক্ষায় ১৩৯ জন শনাক্তের মধ্য দিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্ত ২০ হাজার ছাড়িয়েছে।

হাসপাতালে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৩ জনের মধ্যে করোনায় আক্রান্ত ছিলেন ২ জন। তারা হলেন, যশোরের চৌগাছা উপজেলার কদমতলা এলাকার মৃত মুন্সি মন্ডলের ছেলে আব্দুল খালেক (৬৮) ও ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার সলেমানপুর গ্রামের মৃত রজব আলীর ছেলে আনসার আলী (৭৩)। এছাড়া করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যান ১ জন। তিনি হলেন যশোর সদর উপজেলার মুনতাজ আলীর স্ত্রী মমতাজ বেগম (৬০)।

সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা মেডিকেল অফিসার ডা. রেহেনেওয়াজ জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টারে ৪১০ টি নমুনা পরীক্ষায় ১০৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এছাড়া যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালসহ বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২০১ জনের র‌্যাপিড এন্টিজেন পরীক্ষায় ৩১ জনের শরীরে করোনার জীবাণু পাওয়া যায়। মোট শনাক্ত ১৩৯ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ৭৬ জন, ঝিকরগাছা উপজেলায় ৭৫ জন, অভয়নগর উপজেলায়  ৮ জন, মণিরামপুর উপজেলায় ৮ জন, বাঘারপাড়া উপজেলায় ৭ জন, শার্শা উপজেলায় ৬ জন ও চৌগাছা উপজেলায়  ১৭ জন রয়েছে। ডা. রেহেনেওয়াজ আরও জানান,  মঙ্গলবার ৬ হাজার ৮শ’ ৪১ নারী পুরুষ করোনার টিকা নিয়েছেন। এরমধ্যে চিনের সিনোফার্মের ৪ হাজার ৫০৪ জন ও জাপানের এস্টাজেনেকা টিকা নিয়েছেন ২ হাজার ৩৩৭ জন। এরআগে ৯ আগস্ট  ৩ হাজার ৯শ’ জন, ৮ আগস্ট ৩ হাজার ৩৩৬ জন, ৭ আগস্ট ২ হাজার ৫শ’৭৯ জন, ৫ আগস্ট ৪ হাজার ৯৪ জন, ৪ আগস্ট ৫ হাজার ৫৬২ জন, ৩ আগস্ট ৪৯৬০ জন, ২ আগস্ট ৫ হাজার ২৭৭ জন, ১ আগস্ট ৫ হাজার ৫৭৪ জন, ৩১ জুলাই ৫ হাজার ৫শ’ জন, ৩০ জুলাই ৩ হাজার ২৪২ জন, ২৯ জুলাই ৩ হাজার ২৪২ জন, ২৮ জুলাই ৪ হাজার ৫৫৮ জন, ২৭ জুলাই ৪ হাজার ৯৯২ জন, ২৬ জুলাই ৪ হাজার ৯৩৯ জন, ২৫ জুলাই ৪ হাজার ১৭১ জন ও ২৪ জুলাই ৩ হাজার ৩১৮ জন। আর ৬ আগস্ট (শুক্রবার) সরকারি ছুটির দিন হওয়ায় টিকা প্রয়োগ কার্যক্রম বন্ধ ছিলো।

যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, ১০ আগস্ট পর্যন্ত যশোর জেলায় ২০ হাজার ১২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ১৭ হাজার ২৯২ জন। যশোরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও বাড়িতে মারা গেছেন ৪০৩ জন। এছাড়া ঢাকায় ৬ জন খুলনায় ৭ জন ও সাতক্ষীরার হাসপাতালে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনায় মারা গেছেন ৪১৭ জন।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আখতারুজ্জামান জানান, হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গের রোগী অনেকটা কমেছে। বর্তমানে হাসপাতালের রেডজোনে ৭৪ জন ও ইয়োলোজোনে ২০ জন রোগী চিকিৎসাধীন।