ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

মাগুরায় করোনা সচেতনতায় কোরবানীর হাটে প্রচারাভিযান

Published : Saturday 17-July-2021 21:48:18 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ২১:৪০:৪৮ pm

মাগুরা প্রতিনিধি : করোনা সংক্রমণ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে এ জন্য সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে মাগুরার বিভিন্ন কোরবানীর হাটে কাজ করছেন ব্রাকের ৪৩০ স্বেচ্ছাসেবক স্বাস্থ্যকর্মী। করোনা প্রতিরোধে তারা কোরবানী হাট গুলোতে সাধারণ মানুষকে বিনামূল্যে মাস্ক, লিফলেট ও হ্যান্ড মাইকিং এর মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করছে ।

শরিবার বিকালে সদরের রামনগর হাটে গিয়ে দেখা যায়, ব্র্যাকের কিছু স্বাস্থ্যকর্মী করোনা ভাইরাস সর্ম্পকে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে হ্যান্ড মাইকিং সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান চালাচ্ছে। এ সময় তারা হাটে যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদেরকে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করছে। পাশাপশি করোনা সচেতনতায় প্রচার লিফলেট বিতরণ করছে ।

জেলা ব্র্যাক প্রতিনিধি শরিফুল ইসলাম জানান, দিন দিন জেলায় করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে ব্র্যাক জেলায় দীর্ঘদিন তাদের স্বাস্থ্যসেবিকাদের মাধ্যমে সচেতনতামূলক কাজ অব্যাহত রেখেছে । ইতোমধ্যে জেলার ১৬টি কোরবানী হাটে ব্র্যাকের স্বেচ্ছাসেবক কর্মীরা করোনা প্রতিরোধে সাধারণ মানুষের মধ্যে ৩৩ হাজার ৯৫০টি মাস্ক বিতরণ, লিফলেট বিতরণসহ হ্যান্ড মাইকিং অব্যাহত রেখেছেন। তাছাড়া করোনায় আক্রান্ত রোগীদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতে ব্র্যাকের পক্ষ থেকে টেলিমেডিসিন সেবা প্রদান করা হচ্ছে ।

তিনি আরো জানান, করোনা প্রতিরোধে শুধু হাটে নয়, ব্র্যাকের পক্ষ থেকে হাসপাতাল, মসজিদ, কমিউনিটি ক্লিনিকে মানুষকে সচেতন করতে মাস্ক বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি ব্র্যাকের মাইক্রোফাইনান্স কর্মসূচির সদর উপজেলার ২৭৭ সদস্যদের সঞ্চয় ফেরত বাবদ বিকাশের মাধ্যমে ১১ লাখ ২৭ হাজার দেয়া হয়েছে। এ সকল কার্যক্রম মনিটরিং করতে জেলা ব্র্যাকের পুষ্টি ও জনসংখ্যা কর্মসূচির এলাকা ব্যবস্থাপক রঞ্জন ব্যানাজী ও  এলাকা ব্যবস্থাপক মাইক্রোফাইনান্স  গৌরাঙ্গ পাল সার্বিক ভাবে কাজ করছেন। তাছাড়া করোনাকালীন সময়ে “ডাকছে আমায় দেশ’ প্রকল্পের মাধ্যমে ২৩৮ জন অসহায় মানুষকে ১৫শ’ টাকা প্রদান করা হয়েছে । জেলায় ব্র্যাকের ৪৩ জন স্বাস্থ্যকর্মী করোনা সচেতনতায় সার্বিক ভাবে কাজ করছে । 

রামনগর হাট কর্তৃপক্ষ নুর আলম দিপু জানান, আমাদের হাটে স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়তে মাইকিং অব্যাহত রয়েছে। পাশাপশি সাধারণ মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সাধারণ মানুষকে হাটে আসার আহবান জানাছি। হাটে গরু ছাগলের চাহিদা অনেক বেশি কিন্তু ক্রেতা কম। রামনগর গরু ছাগলের হাটটি একটি স্থায়ী হাট। কঠোর লকডাউনের কারণে আমরা হাট বসাতে পারিনি ফলে আমরা আর্থিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি ।  



আরও খবর