ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ সোমবার, ২৫ অক্টোবর , ২০২১ ● ১০ কার্তিক ১৪২৮

চৌগাছার মানব পাচার মামলায় তিনজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

Published : Thursday 01-July-2021 21:26:57 pm
এখন সময়: সোমবার, ২৫ অক্টোবর , ২০২১ ০৯:২০:৪৩ am

নিজস্ব প্রতিবেদক: গোপালগঞ্জের মকসুদপুরের সেলিম গাজী ও কালু শেখ পাচার মামলায় তিনজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দিয়েছে চৌগাছা থানা পুলিশ। মামলার তদন্ত শেষে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া। অভিযুক্ত আসামিরা হলো, শার্শার নারয়নপুর গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে রাশেদ আলী, বেনাপোলের সাদিপুরের মৃত নুর মোহাম্মদের ছেলে তরিকুল ইসলাম ও চুয়াডাঙ্গার জীবননগরের দৌলতগঞ্জের আকিব আহম্মেদ মিলননের ছেলে কবির হোসেন।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, গোপালগঞ্জের মকসুদপুরের সেলিম গাজী ও কালু শেখ দালাল চক্রের খপ্পরে পড়ে ভারতে পাচার হয়ে তিন বছর কোলকাতায় ছিল। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি ওই দুইজনসহ আরও তিনজন দেশের ফেরার জন্য দালালকে ৪৪ হাজার টাকা দেয়। ২ মার্চ ওই দালাল চক্র গভীর রাতে তাদের ভারত বাংলাদেশের মহেশপুর সীমান্তে পৌঁছায়। এরপর তারা অপরিচিত এক দালালের মাধ্যমে তাদের বাংলাদেশে প্রবেশ করিয়ে অপরিচিত এক দালালের হাতে তুলে দেয়। ওই অপরিচিত দালাল সেলিম ও কালুকে আসামি কবিরের কাছে দিয়ে দেয়। ওইপর তিনজনকে দালালরা আলাদা রেখে দেয়। এরপর আসামিরা কৌশলে সেলিম ও কালুকে বেনাপোলে নিয়ে যাওয়ার ষড়যন্ত্র করতে থাকে। সারাদিন সিএনজিতে ঘুরিয়ে সাড়ে বেলা ৩ টার দিকে চৌগাছার পলয়া গ্রামের মসজিদের সামনে পৌঁছালে সিএনজি থেকে সেলিম তার ব্যাগ ফেলে দিয়ে চিৎকার শুরু করেন। এর মধ্যে আশেপাশের লোকজন এসে পাচারকারী তরিকুল ইসলামকে ধরে থানায় সংবাদ দেয়।

 চৌগাছা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুইজনকে উদ্ধার ও আসামি তরিকুলকে আটক করে। এ ব্যাপারে চৌগাছার দশপাখিয়া পুলিশ ক্যাম্পের এসআই জলিলুর রহমান বাদী হয়ে মানবপাচার দমন আইনে মামলা করেন। এ মামলার তদন্ত শেষে আটক আসামির দেয়া স্বীকারোক্তি জবানবন্দি ও সাক্ষীদের দেয়া তথ্যের যাচাই বছাই করে ঘটনার সাথে জড়িত থাকায় ওই তিনজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ চার্র্জশিট দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। চার্জশিটে অভিযুক্ত রাশেদ ও কবিরকে পলাতক দেখানো হয়েছে।