ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ রবিবার, ১৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ২ কার্তিক ১৪২৮

চিকিৎসক সংকটে শালিখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

Published : Saturday 04-September-2021 21:34:42 pm
এখন সময়: রবিবার, ১৭ অক্টোবর , ২০২১ ১৯:৩০:২৮ pm

শালিখা (মাগুরা) প্রতিনিধি: মাগুরার শালিখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ৩১ শয্যা নিয়ে হাসপাতালের যাত্রায় উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের চিকিৎসা সেবার এক মাত্র ভরসা এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটি। নতুন ভবন নির্মিত হয় ১৯১৬ সালে পরবর্তিতে ৫০ শয্যা চালু হয় ২০১৯ সালে।

এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক সংকটে স্বাস্থ্যসেবায় দুরবস্থা দেখা দিয়েছে। ফলে প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে চিকিৎসা নিতে আশা রোগীরা।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, ৫০ শয্যাবিশিষ্ট শালিখা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১১ জন চিকিৎসকের পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন মাত্র ৪ জন। যার কারণে প্রতিদিন বহির্বিভাগে কয়েকশ রোগী চিকিৎসা নিতে আসলেও কাক্সিক্ষত চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন রোগীরা।

শালিখা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫টি কনসালটেন্ট পদে কোনো চিকিৎসক কর্মরত নেই। সার্জারি এবং এ্যানেসথেসিয়া কনসালটেন্ট না থাকায় এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটিতে কোন অপারেশন হয় না। ৩য় শ্রেণির কর্মচারীর ৫৫টি পদ থাকলেও কর্মরত আছেন ৩৩ জন ৪র্থ শ্রেণির ১৯টি পদের মধ্যে ১৩ টি পদ শূন্য রয়েছে। মাঠ পর্যায়ে ২৪ জন স্বাস্থ্য সহকারীর মধ্যে শুন্য রয়েছে ১১ টি পদ। যার কারণে ব্যাহত হচ্ছে ইপিআই এর কাজ। ২০০২ সালে প্রাপ্ত এক্সেরে মেশিনটি অকেজো থাকায় এক্সেরে সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সেবা নিতে আসা রোগিরা। ফলে দরিদ্রপীড়িত অঞ্চলের রোগীরা স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রবিউল ইসলাম জানান, ডাক্তার সংকটের কারণে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এই করোনাকালিন সময়ে স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে রোগীদের আসানুরূপ সেবা প্রদানে নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এছাড়া করোনা টিকা প্রদান অব্যাহত ভাবে চালিয়ে যাচ্ছি, এপর্যন্ত এ উপজেলায় মোট ১ম ডোজ ২৮ হাজার ৫শত ৩৯ জনকে ও ২য় ডোজ ১৪ হাজার ২শত ৯১ জনকে প্রদান করা হয়েছে। জন সংখ্যার অনুপাতে টিকা প্রদানে মাগুরা জেলার ৪ উপজেলর মধ্যে শালিখা এখনও প্রথম স্থানে। একটি সেবা মূলক কাজে আত্ম নিয়োগ করেছি, সারা জীবন এ ভাবে যেন মানুষের সেবায় সঠিক পথে থেকে নিজেকে বিলিয়ে দিতে পারি। তিনি আরও বলেন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের একটি ওষুধের জন্য দোকানে যেতে হবে না। ডাক্তার সংকট নিরসন ও আধুনিক যন্ত্রপাতি সংযোজিত হলে আমরা এলাকার সাধারণ মানুষের উন্নত সেবা দিতে সক্ষম হবো।