ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

কর্মকর্তাদের দুর্ব্যবহার ‘দুর্নীতির শামিল’ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

Published : Tuesday 07-September-2021 22:46:43 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ২২:১৩:০৩ pm

স্পন্দন ডেস্ক : সরকারি কর্মকর্তাদের স্যার বা ম্যাডাম বলতে হবে এমন কোনো রীতি নেই এবং কর্মকর্তাদের দুর্ব্যবহার ‘দুর্নীতির শামিল’ বলে মন্তব্য করেছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) আয়োজিত এক সংলাপে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “স্যার শব্দের বাংলা অর্থ মহোদয়। রুলস অব বিজনেসে এটা নেই। স্যার বা ম্যাডাম সম্বোধন করতে হবে এমন কোনো রীতি নেই।”

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কীভাবে কাজ করতে হবে, সে বিষয়ে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনাগুলো তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী তিনি বলেন, “জাতির পিতার নির্দেশনা ছিল যারা সেবা নিতে আসেন তাদের দিকে তাকাও, তারা তোমার বাবার মত, ভাইয়েরর মত, আত্মীয়ের মত।

“সেবা নিতে আসেন জনগণ। তাদের টাকায় তোমাদের বেতন হয়। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনা আমরা বাস্তবায়ন করতে চাই। বিভাগীয় কমিশনার থেকে মাঠ প্রশাসনকে আমরা সেই নির্দেশনাই দিই। জনগণের সঙ্গে মিশে যেতে হবে। সেক্ষেত্রে এখানে কোনো ভেদাভেদ থাকবে না।”

কর্মকর্তাদের আচারণের বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “হাসিমুখে সেবা দেওয়াটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। দুর্ব্যবহার দুর্নীতির শামিল, এটা কখনো করা যাবে না। আইনের মধ্যে থেকে সাধ্যমত সেবা দেওয়ার মনোভাব থাকতে হবে। কর্মকর্তারা যাতে এটি মেনে চলেন।

“আপনি অত্যন্ত সুন্দরভাবে সাবলীলভাবে কথা বলুন। এই কথা বলার অর্থ এই না আপনি আপনার ক্ষমতা দেখাতে পারছেন না। আপনি এখানে হেরে যাচ্ছেন এমন কিছু না। আপনার আচরণ থাকবে আইনের মধ্যে থেকে সাধ্যমত সেবা দেওয়া। সেক্ষেত্রে আপনার আচরণ সরকারের আচরণ।”

প্রতিমন্ত্রী বলেন, “আপনার আচরণ, আপনার অফিস, সাধারণ মানুষ মনে করে এটি মাননীয়  প্রধানমন্ত্রীর অফিসের একটি অংশ। অতএব সেক্ষেত্রে যাতে করে আমাদের কর্মকর্তারা এটি অবশ্যই মেনে চলেন। স্যার, ম্যাডাম বা এমন কিছু বলে সম্বোধন করতে হবে, এমন কোনো নীতি নাই।”

“আমরা চাচ্ছি সব ধরনের মানবিক গুণাবলী যাতে আমাদের কর্মকর্তাদের বাড়ে। তারা যেন অত্যন্ত মানবিক হন। সে বিষয়টা কিন্তু আমরা তাদেরকে বলছি।”

৩২ মাসে দণ্ড পেয়েছেন প্রশাসন ক্যাডারের ৫৫ কর্মকর্তা

২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি থেকে চলতি ৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রশাসন ক্যাডারের ৫৫ জন কর্মকর্তাকে বিভিন্ন অভিযোগে লঘু ও গুরু দণ্ড দেওয়া হয়েছে। শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে আরও ৪৯টি মামলা চলমান আছে বলে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী জানান।

সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে রাজনীতিবিদরে মতানৈক্য বাড়ছে কিনা- এমন প্রশ্নে ফরহাদ বলেন, “কয়টি ঘটনা ঘটেছে সেটা দেখা দরকার। বরিশালে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। করোনার মধ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। অত্যন্ত আন্তরিকভাবে জনপ্রতিনিধি ও সরকারি কর্মকর্তারা কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা বেশি জনমুখী হয়েছি। দুয়েক জায়গায় যে ঘটনা ঘটেছে তদন্ত করে বিষয়গুলো বোঝার চেষ্টা করছি।”

কর্মকর্তাদের কাজের গুণগত মান বেড়েছে দাবি করে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, “এসিল্যান্ড অফিসে অনেক ঝামেলা ছিল, এখন ডিজিটালাইজেশনের কারণে সেই ঝামেলা নেই। এখন ৯৫ শতাংশ কর্মকর্তাই সফল হচ্ছে। ৫ শতাংশ কর্মকর্তা কমিউনিকেশেনের জন্য সুন্দর করে বললে এমন হত না।”

প্রধান তথ্য কর্মকর্তা মো. শাহেনুর মিয়া, বিএসআরএফ সভাপতি তপন বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক মাসউদুল হক অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।



সর্বশেষ সংবাদ