ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ রবিবার, ১৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ২ কার্তিক ১৪২৮

তালায় মৃত মহিলার নামে ভিজিডি কার্ড !

Published : Thursday 04-February-2021 21:54:34 pm
এখন সময়: রবিবার, ১৭ অক্টোবর , ২০২১ ০৬:১৩:৫৫ am

তপন চক্রবর্তী, তালা (সাতক্ষীরা) : নয় বছর আগে মৃত এক মহিলার নামে ভিজিডি কার্ড বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে সাতক্ষীরার তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়নে। মৃত  মহিলার নাম রনজিদা বেগম। তার জাতীয় পরিচয় পত্রের নাং ৮৭১৯০৩১৫০৮৫৪১। তিনি ইউনিয়নের হাজরাকাটী গ্রামের শামছুদ্দিন মোড়লের স্ত্রী।

তালা উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ২০২১-২২অর্থ বছরের ভিজিডি চক্রের কর্মসূচির আওতায় তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়নে ২২৩ টি কার্ড বরাদ্দ হয়। বরাদ্দ মোতাবেক প্রকাশ্যে সভা করে সেই অনুযায়ী ২২৩ টি কার্ডের উপকারভোগীর তালিকা চূড়ান্ত করা হয়। তবে উপকার ভোগীদের তালিকা প্রস্তত’র সময়ে খলিলনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ইচ্ছা মতো তালিকা ও স্বজন প্রীতির অভিযোগ উঠেছিল । গত ৩১ জানুয়ারি উপকারভোগীদের মধ্যে চালও বিতরণ করা হয়েছে।

অনুসন্ধানে জানাগেছে, ২০১১ সালে মারা যান রনজিদা বেগম। কিন্তু নয় বছর পরে এসেও ভিজিডি চক্রের উপকারভোগীর তালিকায় ১ নম্বর ওয়ার্ডের ১৫ নম্বরে তার নাম রয়েছে। এখানেই শেষ নয়, প্রতিবন্ধী ভাতা প্রাপ্ত সচ্ছল নলতার ঘোষপাড়ার সাধন ঘোষের স্ত্রী বাসন্তীকে দেয়া হয়েছে ভিজিডির চক্রের উপকারভোগীর কার্ড। সম্প্রতি তারা ভিজিডি কার্ডের চাল উত্তোলন করেছেন বলেও জানাগেছে।

এ বিষয়ে খলিলনগর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডেও ইউপি সদস্য আ.স.ম আব্দুর রব বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। উপকার ভোগীদের তালিকা প্রস্তুত করতে ১৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি আছে। পদাধিকার বলে কমিটির সভাপতি সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, সদস্য সচিব  সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের সচিব ছাড়াও ওই কমিটিতে শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধা, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আছেন। তবে রনজিদা বেগম মারা গেছেন বিষয়টি সত্য। তিনি আরো বলেন, তার ওয়ার্ডের কাটবুনিয়া গ্রামকে ভিজিডির তালিকা থেকে সম্পূর্ণ বাদ দেওয়া হয়েছে। সেখান থেকে কাউকে ভিজিডির আওতায় আনা হয়নি। 

এবিষয়ে খলিলনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান রাজু বলেন, মৃত রনজিদার সতিন তথ্য গোপন করে নিজে রনজিদা পরিচয়ে ভিজিডি কার্ডের চাল উত্তোলন করতে এসেছিলেন। বিষয়টি জানতে পেরে কার্ডের চাল আটকে রেখে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জানানো হয়। তথ্য গোপনকারীর ওই কার্ডের চাল পরিষদে রক্ষিত আছে। আগামি (৭ফেব্রুয়ারি) রোববার রেজুলেশন করে মৃত ব্যক্তির নাম বাদ দেয়া হবে। আর অপেক্ষমান তালিকা থেকে একজনের নাম দেয়া হবে এবং পরিষদে রক্ষিত চাল তাকে দেয়া হবে।

এ বিষয়ে তালা উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন,  বিষয়টি আমি শুনেছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. তারিফ-উল-হাসান জানান, বিষয়টি প্রথমে শুনলাম। যদি এমন হয়, তাহলে তদন্ত করে যথাযত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।