ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

অসময়ের শিমে লাখোপতি কৃষক

Published : Friday 06-August-2021 21:16:32 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ১৮:৩৭:০৫ pm

জামির হোসেন, কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ)  : মাঠের পর মাঠ জুড়ে শিম ক্ষেত। সেই ক্ষেতেই সদ্য ফোটা ফুল অসময়ে সৌন্দর্য্য ছড়াচ্ছে। একপাশে ফুল অন্য পাশে ছড়ায় ছড়ায় ঝুলছে শিম। সেই ক্ষেতে কাজ করছেন কৃষক। মহামারি করোনার ভয়াবহতার মধ্যেও তাদের কণ্ঠে যেন বইছে আনন্দের সুর। চোখে পড়ার মত এমন দৃশ্যটি এখন ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার সুবিতপুর গ্রামের মাঠে। ক্ষেতে কাজে এসে প্রচন্ড রোদে পুড়লেও নেই তাদের কোনো ক্লান্তি। কারণ এবারের অসময়ের শিম চাষে বাম্পার মূল্য পাচ্ছেন কৃষকেরা। কৃষকদের ভাষ্য, এ শিমগাছ বৃষ্টি সহিঞ্চু। বর্তমানে বাজারে প্রতি কেজি শিম ১০০ থেকে ১২৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এ হিসেবে এবার প্রতি বিঘায় খরচ বাদে তারা প্রায় লাখ টাকা আয় করবেন বলে তারা আশাবাদী।
সরেজমিনে উপজেলার রাখালগাছী ইউনিয়নের সুবিতপুর গ্রামের মাঠে গিয়ে দেখা গেছে, অনেক কৃষকই তাদের ক্ষেতে অসময়ের শিমের চাষ করেছেন। ওই গ্রামের সবজি চাষি বাপ্পারাজ জানান, শিম সাধারণত শীতকালীন সবজি। এর আগে বর্ষাকালে চাষ হতো না। কিন্তু ভিন্ন জাতের এ শিম এখন বারোমাস চাষ করা যায়। তিনি এবার ৪ বিঘা জমিতে এ ভিন্ন জাতের সিম চাষ করছেন। তারমত তাদের গ্রামের কৃষক রফি উদ্দিন, শহিদুল ইসলাম, হাসেম আলী, ইমরান হোসেন, হারুন অর রশিদ, রহমত, পান্নু রহমান,আব্দুল সাত্তার সহ অনেক কৃষক প্রায় অর্ধশত বিঘা জমিতে গ্রীষ্মকালীন এ জাতের শিম চাষ করছেন।
ওই গ্রামের শহিদুল ইসলাম সহ শিম আবাদ করা কৃষকরা জানান, অসময়ের আবাদ করা এ সিম নতুন সবজি হিসাবে বাজারে বেশ চাহিদা। দামও বেশি থাকে। ক্ষেতেও ভালো ফলন হচ্ছে। তারা জানায়, প্রতি বিঘা সিম আবাদে বীজ, সার, কীটনাশক ও মাচার টাল দেয়া বাবদ প্রায় ১৫/২০ হাজার টাকা খরচ হয়ে থাকে। শ্রাবন মাসের প্রথম দিকে এ শিমের বীজ বপন করতে হয়। পরবর্তীতে চারা গজানোর ২৫ থেকে ৩০ দিনের মাথায় ফুল আসে। এরপর দেড় মাস পর থেকেই সিম তোলা শুরু হয়। একটানা ৬ মাস পর্ষন্ত ক্ষেত থেকে সিম উঠানো যায়।
কৃষকরা আরো জানায়, বর্তমানে বাজারে প্রতি কেজি সিম ১০০ থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে শীত মৌসুম শুরু হলেই এ সিমের বাজার মূল্য কমে যাবে। তারপরও সব মিলিয়ে তাদের জমিতে অসময়ের এ সিম চাষে বিঘা প্রতি প্রায় লাখ টাকা মুনাফা পাবেন বলে আশাবাদী।
কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শিকদার মোহায়মেন আক্তার জানান, এ বছর উপজেলার বেশ কিছু এলাকার কৃষকেরা জমিতে শিমের চাষ করেছেন। অসময়ের শিম হওয়ায় দামও ভালো পাচ্ছেন। ফলে কৃষকেরা দিন দিন শিম চাষে ঝুঁকছেন।



আরও খবর