ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

চরম ঝুঁকিতে দেশের সর্ব দক্ষিণ জনপদের মানুষ

Published : Friday 02-April-2021 21:44:45 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ১৮:১৬:৫৯ pm

শাকিলা ইসলাম জুঁই, সাতক্ষীরা:
সাতক্ষীরার উপকূলীয় আশাশুনি এবং শ্যামনগর উপজেলার কপোতাক্ষ, খোলপেটুয়া ও চুনা নদীর প্রবল জোয়ারের কারণে বেড়িবাঁধে ব্যাপক ফাঁটল ও ভাঙন দেখা দিয়েছে। স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের ১ ও ২ এর আওতায় প্রায় ১৭ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ চরম ঝুঁকিতে পড়েছে। ইতোমধ্যে নদীর প্রবল জোয়ারে শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের পশ্চিম দূর্গাবাটি ও দাঁতনেখালি খোলপেটুয়া নদীর বাঁধভেঙে দূর্গাবাটি এবং দাঁতনেখালি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। অপরদিকে আশাশুনি উপজেলা সদরের দয়ারঘাট এলাকাসহ মোট ৫টি পয়েন্টের বেড়িবাঁধ ভেঙে মোট ৩টি গ্রাম সহ বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। সহস্্্রাধিক চিংড়ী ঘের ও ছোট বড় পুকুর ভেসে গেছে। কয়েক হাজার বসতবাড়ী ও খাল-বিল এবং ফসলি জমি এখনো পানিতে তলিয়ে আছে। চরম দুর্ভোগে পড়েছে এলাকাবাসী। ভেঙে যাওয়া এলাকা কপোতাক্ষ নদের দয়ারঘাট স্পটটি বলিভর্তি জিওব্যাগ ফেলে কোনো ভাবে শক্রবার সংস্কারের চেষ্টা হচ্ছে। এছাড়া শ্যামনগরের খোলপেটুয়া নদীর পশ্চিম দূর্গাবাটি, দাঁতনেখালি বাঁধগুলো জিও ব্যাগ ফেলে পানি আটকানোর চেষ্টা করা হলেও সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঠিকাদার। ফলে দিনে কমপক্ষে দু’বার নদীর জোয়ারের লোনা পানি ঢুকছে লোকালয়ে।
সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড-২ এর তথ্য মতে, আশাশুনি উপজেলাসহ পানি উন্নয়ন বোর্ড-২ এর আওতায় ৭/১,৭/২ ও পোল্ডার ৪ এর আওতায় মোট ৪শ’ ২৬ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ রয়েছে। এর মধ্যে ঘূর্ণিঝড় আম্পানে স্থানভেদে ৪৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভেঙে যায় এবং ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
আশাশুনি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবিএম মোস্তাকিম জানান, ঝুকিপূর্ণ ভেড়িবাঁধ সংস্কারের জন্য বার বার তাগিত দেয়া হচ্ছে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তাদের। ২৯ মার্চ কপোতাক্ষ নদের প্রবল জোয়ারে পানি বৃদ্ধি পেয়ে চরম ঝুকিতে থাকা আশাশুনি উপজেলা সদরের দয়ারঘাট ও জেলেখালী এলাকা মুহূর্তের মধ্যে বাঁধ ভেঙে বিস্তৃর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়। এখনো ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে আশাশুনি সদরের খোলপেটুয়া নদীর দয়ারঘাট, জেলেখালী, বলাবাড়ীয়া প্রতাপনগর ইউনিয়নের কপোতাক্ষ নদের কুড়িকাউনিয়া, চাকলা, শুভাদাকাটি, হিজরাকুলা ও হরিষখালী, আনুলিয়া ইউনিয়নের মনিপুর, বিছট, খাজরা বাজার ও শ্রীউলা ইউনিয়নের হাজরাখালী, গরালি এবং বড়দলের কেয়ারগাঁতি এলাকা। অচিরেই এসব বাঁধ সংস্কার না হলে এই বর্ষা মৌসুমের মধ্যেই নদীর প্রবল জোয়ারে বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হবে লোকালয়ের লক্ষ লক্ষ মানুষ। ভেসে যাবে কোটে কোটি টাকার চিংড়ী ঘের।
এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ড-২এর নির্বাহী প্রকৌশলী শুধাংশু কুমার সরকার জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ড-২ এর ৪ নং পোল্ডারের আওতায় ঘূর্নিঝড় আম্পানের জলচ্ছাসে ভেঙে যাওয়া বাঁধগুলি ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে পুরোদমে বাঁধ সংস্কারের কাজ চলছে। নদীর জোয়ারের পানিতে গত মঙ্গবার ভেঙে যাওয়া দয়ারঘাট বাঁধটি  ইতোমধ্যে সংস্কার করতে সক্ষম হয়েছে সংশিলিষ্ট ঠিকাদার। দ্রুত গতিতে চলছে বাঁধ নির্মানের কাজ। দীর্ঘ মেয়াদি চিরস্থায়ী টেকসই বাঁধ নির্মান করার জন্য পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। প্রস্তাব ও বরাদ্দ পাশ হলে টেকসই বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু করা হবে।
এদিকে শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিএম মাসুদুল আলমও বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডল ও কলবাড়ী গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান জানান, সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড-১ এর আওতায় ১৫ নম্বর পোল্ডারের অধীনে চারিদিকে নদী বেষ্টিত ব-দ্বীপ ইউনিয়ন গাবুরা। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের পরে বেশ কিছু স্পটে পানি উন্নয়ন বোর্ড বাঁধ সংস্কারের কাজ করে। কিন্তু কালিবাড়ী, ট্যাকেরহাট, পাশ্মেমারি, জেলেখালী বেড়িবাঁধ এখনো রয়েছে চরম ঝুকিতে। এছাড়া বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের পশ্চিম দূর্গাবাটি, দাঁতনেখালী আজিজ ম্যানেজারের বাড়ী হতে প্রায় ১ কিঃমিটার ও শাহ-আলম গাজীর বাড়ির সামনে থেকে গাবুরা-বুড়িগোয়ালিনী কলেজ পর্যন্ত ২ কিলোমিটার এবং বুড়িগোয়ালিনী ও আটুলিয়া ইউনিয়নের মাদিয়া ও ভামিয়া এলাকার ১ কিলোমিটার বাঁধ চরম ঝুঁকিতে রয়েছে। এছাড়া বুড়িগোয়ালিনী ফরেষ্ট ক্যাম্পের সামনে থেকে বুড়িগোয়ালীনি বাজার পর্যন্ত এবং মুন্সিগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড থেকে মৌখালী পর্যন্ত ৩ কি:মিটার বাঁধে ভাঙন ও ব্যাপক ফাঁটল রয়েছে। আগামি বর্ষা মৌসুমের আগে ঝুঁকিপূর্ন বাঁধগুলি সংস্কার করা না হলে সুন্দরবন ঘেষা আশাশুনি ও শ্যামনগর উপজেলার বসবাসরত প্রায় ৬ লক্ষ মানুষ চরম দূর্ভোগে পড়বে। ফলে এখন থেকেই নদী ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে দেশের সর্ব দক্ষিণ জনপদের মানুষ।
এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের জানান পাউবো-১ এর অধীনে সাতক্ষীরা সদর, দেবহাটা, কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর এ চারটি উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় ফণি ও আম্পান পরবর্তী ২ কোটি ২৪ লাখ টাকার বাঁধ সংস্কার করা হয়।



আরও খবর