ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ সোমবার, ২৫ অক্টোবর , ২০২১ ● ৯ কার্তিক ১৪২৮

সাত ফুট লম্বা চিচিঙ্গা উৎপাদন পাইকগাছার কৃষকের

Published : Thursday 16-September-2021 22:15:44 pm
এখন সময়: সোমবার, ২৫ অক্টোবর , ২০২১ ০৪:৩৯:৩৪ am

প্রকাশ ঘোষ বিধান, পাইকগাছা: পাইকগাছায় কৃষক অখিল মন্ডলের ক্ষেতে সাত ফুট লম্বা চিচিঙ্গা হয়েছে। বাড়ির উঠানে মাচা বা বানে এরকম লম্বা চিচিঙ্গা ঝুলছে। অনেকে বিদেশি জাতের এই লম্বা চিচিঙ্গা দেখতে বাড়িতে ভীড় করছে। বৈরি আবহাওয়া ও অতিবৃষ্টির মধ্যে বিদেশী জাতের লম্বা লম্বা চিচিঙ্গা উৎপাদন করতে কৃষক অখিল মন্ডল সফলত হয়েছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

জানা গেছে, গত বছর পাইকগাছার কৃষক নিলু ভারতের অন্ধপ্রদেশ থেকে এ চিচিঙ্গার বীজ সংগ্রহ করে এনেছে। কুড়িটি বীজ এনেছিলো। তিনি নিজে লাগিয়েছিল এবং পাশের কৃষকদের বীজ দিয়েছে লাগানোর জন্য। সরল গ্রামের কৃষক অখিল জানান, বাড়ির উঠানে চারটি মাদায় বীজ বপন করে। তিন চার ফুট গাছ বড় হওয়ার পর অতিবৃষ্টির কারণে অনেক গাছ মরে যায়। একটি গাছ বেঁচে যায়। সেই গাছে চিচিঙ্গা ধরেছে। দুইটি বড় হয়েছে। আর ছোটছোট অনেক গুলি ধরেছে, ফুলও আছে। কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে ক্ষেতের ক্ষতি হয়েছে। গাছ টিকিয়ে রাখতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। সে সময় প্রায় চার ফুট লম্বা একটি চিচিঙ্গা নষ্ট হয়ে গেছে। ক্ষেতের মাচায় বড়দুটি চিচিঙ্গা প্রায় সাত ও সাড়ে ছয় ফুট লম্বা হয়েছে। একই গ্রামের কৃষক অনুকুল ব্যানার্জী জানান, এ বছর তার ক্ষেতের চিচিঙ্গা গাছ ৪-৫ ফুট লম্ব হলে একটানা অতি বৃষ্টিতে গাছগুলো মারা গেছে। পুনরায় তিনি চিচিঙ্গার বীজ বপন করেছেন। যার উচ্চতা ২-৩ ফুট হয়েছে।

আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরণের চিচিঙ্গা দেখা যায়। এগুলো হল ঝুম লং, সাদা সাভারী, কইডা বা বন চিচিঙ্গা। এছাড়াও বেশকিছু হাইব্রিড জাতের চিচিঙ্গাও পাওয়া যাচ্ছে। তার মধ্যে রয়েছে তিস্তা, তুরাগ, সুরমা, রূপসা, ঢাকা গ্রিন, মধুমতি, বর্ণালী, চিত্রা, রোহিনী ইত্যাদি। এছাড়াও আমাদের দেশে এখন অনেক বিদেশী জাতের চিচিঙ্গা ও চাষ করা হচ্ছে। জানুয়ারি বা ফেব্রুয়ারি মাস থেকে চিচিঙ্গা চাষের প্রস্তুতি নেওয়া যায়। যেসব জমি উঁচু ও বৃষ্টির পানি আটকে থাকে না এমন জমিতে চিচিঙ্গা ভালো হয়। চিচিঙ্গা বা কুশি হচ্ছে ঝিঙের মত লম্বা বা কখন সাপের মত পেচানো দেখতে। এটা হালকা সবুজ ও গাঢ় সবুজ সাদা ডোরা কাটা উভয় ধরনের হয়ে থাকে। লম্বা ৩০-৪০ সে:মি:বা ১৮-২৫ ইঞ্চি হয়। চিচিঙ্গা গ্রীষ্মকালীন সবজি।

বাংলাদেশের সব এলাকায় এ সবজির চাষ হয়। এলাকা ভিত্তিক চিচিঙ্গা, কুশি ও কাইডা নামে পরিচিত। এই এলাকায় কুশি নামে সবজিটি পরিচিত। কুশি শতভাগ ভক্ষণযোগ্য অংশে ৯৫ ভাগ পানি থাকে। এর অনেক ঔষধি গুণ আছে। এ বিষয় উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবদি মো: জাহাঙ্গীর আলম জানান, এটি ভারতের উন্নত জাতের চিচিঙ্গা। বীজ উৎপাদন করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে কৃষককে। চিচিঙ্গার এই জাতটি সংরক্ষণে উদ্যোগ নিলে দেশে চাষ করা সম্ভব এবং কৃষিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।