ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

শ্বশুরবাড়ি থেকে প্রবাসী জামাইয়ের লাশ উদ্ধার

Published : Monday 26-July-2021 22:18:22 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ২২:৩৪:৪৭ pm

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের অভয়নগরে শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে এসে শরিফুল ইসলাম (৩৪) নামে প্রবাসী এক জামাইয়ের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দুপুরে উপজেলার শ্রীধরপুর ইউনিয়নের শংকরপাশা গ্রামের শাহিনপাড়ায় আবুল হোসেনের বাড়ি থেকে মরদেহ উদ্ধার করে অভয়নগর থানা পুলিশ। নিহত শরিফুল ইসলাম মালয়েশিয়ার একটি কোম্পানিতে টাইল্স মিস্ত্রির কাজ করতেন। তিনি শার্শা উপজেলার নাভারণ জামতলার সামটা গ্রামের হানিফ মোড়লের ছেলে।

এলাকাবাসী জানান, শাহিনপাড়ার আবুল হোসেনের মেয়ে শিল্পী বেগমের সঙ্গে শার্শা উপজেলার নাভারণ জামতলা সামটা গ্রামের হানিফ মোড়লের ছেলে মালয়েশিয়া প্রবাসী শরিফুল ইসলামের বিয়ে হয়। বর্তমানে তাদের সংসারে সিয়াম নামে সাত বছরের একটি পূত্র সন্তান রয়েছে। ঈদের এক দিন পর শরিফুল নিজ গ্রাম থেকে শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে আসেন। সোমবার (২৬ জুলাই) সকালে তাঁর রহস্যজনক মৃত্যু হয়। জামাই শরিফুলকে হত্যা করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার ঘটনা সাজানো হয়েছে।

নিহতের স্ত্রী শিল্পী বেগম জানান, তার স্বামী মালয়েশিয়ায় একটি কোম্পানিতে টাইল্স মিস্ত্রির কাজ করতেন। এক সপ্তাহ পূর্বে ঈদের ছুটিতে দেশে ফেরেন। নিজ গ্রামের বাড়িতে ঈদ উদযাপন শেষে অভয়নগরে বেড়াতে আসেন। ঘটনার দিন রাত আনুমানিক ২ টা পর্যন্ত ছেলে সিয়ামকে নিয়ে ঘরের মধ্যে ছিলেন তারা। এক পর্যায়ে বিদেশ থেকে পাঠানো টাকা নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হলে শিল্পী ঘরের বাইরে বারান্দায় গিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। ভোররাতে ঘরে গিয়ে ডাবার সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় শরিফুলের দেহ দেখে চিৎকার করেন। পরে পরিবারের অন্যান্য সদস্যেদের সহযোগিতায় মরদেহ নামিয়ে বিছানায় রাখা হয়।

নিহতের ভাই কামরুল ইসলাম মুঠোফোনে জানান, তার ভাই শরিফুল খুব শান্ত স্বভাবের ছিল। ভাবির পরকীয়া প্রেম সম্পর্কে জেনে যাওয়ায় তার ভাইকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। তিনি আরো বলেন, অভয়নগর থানায় হত্যার ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ দিতে গেলে তা নেয়া হয়নি। 

এ ব্যাপারে অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম শামীম হাসান জানান, গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে এমন অভিযোগে শরিফুল ইসলাম নামে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ যশোর মর্গে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর বলা যাবে এটি ‘হত্যা না আত্মহত্যার’ ঘটনা।

 



আরও খবর