ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

যশোরে করোনা ওয়ার্ড ফাঁকা

Published : Thursday 26-August-2021 22:10:20 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ২৩:১১:৫৩ pm

মৃত্যু নেই কমেছে শনাক্ত, বেড়েছে টিকা গ্রহণ

বিল্লাল হোসেন: ১ মাস আগেও করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গের রোগীদের চাপে জায়গা ছিলো না যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে। ওয়ার্ডে , মেঝে ও বারান্দায় জায়গা না থাকায় রোগীদের ঠাই হয়েছিলো খোলা আকাশের নিচে। বাড়তি রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে হিমশিম খেতে হয়েছিলো হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। রোগীদের দুর্ভোগ কমাতে বাড়ানো হয়েছিলো ওয়ার্ড ও শয্যা। কিন্তু বর্তমানে হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গের রোগীদের চাপ নেই বললেই চলে। গত ২৪ ঘণ্টায় যশোরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কারো মৃত্যু হয়নি। আবার শনাক্তের সংখ্যা কমেছে।  ৪০২ টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪২ জনের। এছাড়া শুক্রবার যশোর জেলায় ৫ হাজার ৭৭৪ জন করোনার টিকা গ্রহণ করেছেন ।

সিভিল সার্জন অফিস জানিয়েছে, গত ১২ জুনের পরপর চলতি মাসের তিন দিনে যশোর জেলায় করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা শূন্য হয়েছে। প্রথম মৃত্যু শূন্য হয় ১৫ আগস্ট, দ্বিতীয় মৃত্যু হয় ২৩ আগস্ট ও সর্বশেষ ২৬ আগস্ট ছিলো মৃত্যু শূন্যের দিন।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ জানান, চলতি মাসে হাসপাতালের রেডজোনে ও ইয়োলোজোনে করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গের রোগীদের মৃত্যু অনেক কমেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টা শুক্রবার সকাল ৮ টা পর্যন্ত করোনায় ও উপসর্গে কারো মৃত্যু হয়নি। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনা ওয়ার্ডের অধিকাংশ শয্যা ফাঁকা হয়ে গেছে। রোগীদের চাপ নেই বললেই চলে।

অথচ ১ মাস আগেও করোনা ও উপসর্গের রোগীদের চাপে হাসপাতালের কর্মকর্তারা দুশ্চিন্তায় ছিলো। ওয়ার্ডে জায়গা না পেয়ে রোগীরা ঘন্টার পর ঘন্টা গাছ তলার নিচে থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন।

সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা মেডিকেল অফিসার ডা. রেহেনেওয়াজ জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টারে ৩১৪ টি নমুনায় ৩২ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এছাড়া যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালসহ বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৮৫ জনের র‌্যাপিড এন্টিজেন পরীক্ষায় ১০ জনের শরীরে করোনার জীবাণু মিলেছে। মোট শনাক্ত ৪২ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ৩১ জন, অভয়নগর উপজেলায় ২ জন, বাঘারপাড়া উপজেলায় ৩ জন, ঝিকরগাছা উপজেলায় ৩ জন, মণিরামপুর উপজেলায় ১ জন ও শার্শা উপজেলায় ২ জন রয়েছেন। ডা. রেহেনেওয়াজ আরও জানান, বৃহস্পতিবার ৫ হাজার ৭৭৪ জন টিকা নিয়েছেন। এরমধ্যে চিনের সিনোফার্মের ৫ হাজার ৩২৪ জন ও জাপানের এস্টাজেনেকা টিকা নিয়েছেন ৪৫০ জন। এর আগে বুধবারের হিসেবে করোনাভাইরাসে ৪ জন ও উপসর্গে ২ জন মারা যান। আর ৪২৫ টি নমুনায়  ৫০ জনের করোনা পজেটিভ ছিলো । আর টিকা নিয়েছিলেন ৫ হাজার ৫৭ জন।

যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, ২৬ আগস্ট পর্যন্ত যশোর জেলায় ২০ হাজার ৯৯৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ১৯ হাজার ৪৬০ জন। যশোরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও বাড়িতে মারা গেছেন ৪৫১ জন। এছাড়া ঢাকা, খুলনা ও সাতক্ষীরার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনায় মারা গেছেন ৪৬৭ জন।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আখতারুজ্জামান জানান, হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গের রোগীর চাপ কমেছে। বর্তমানে রেডজোনে ৫৫ ও ইয়োলোজোনে ১৪ রোগী চিকিৎসাধীন। এরমধ্যে ২৪ ঘন্টায় রেডজোনে ৬ জন ও ইয়োলোজোনে ৫ জন ভর্তি হন।



আরও খবর