ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ শুক্রবার, ২২ অক্টোবর , ২০২১ ● ৭ কার্তিক ১৪২৮

যশোরে করোনায় ঝরলো ৩৮৮ প্রাণ, আক্রান্ত সাড়ে ১৯ হাজার

Published : Thursday 05-August-2021 21:59:01 pm
এখন সময়: শুক্রবার, ২২ অক্টোবর , ২০২১ ১০:৪২:১০ am

# ১৩ দিনে টিকা নিলেন ৫৬ হাজার ১৮৭ জন

বিল্লাল হোসেন: যশোরে ১৬ মাসে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৩৮৮ জনের প্রাণ ঝরে গেছে। এছাড়া ১৯ হাজার ৪২৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদিকে গত ১৩ দিনে ৫৬ হাজার ১৮৭ জন নারী পুরুষ ভ্যাকসিন (টিকা) গ্রহণ করেছেন। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা ডা. রেহেনেওয়াজ।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানিয়েছে, যশোরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় ২০২০ সালের ১৩ এপ্রিল। তিনি ছিলেন মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১ জন স্বাস্থ্যকর্মী। তারপর থেকে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। একে একে ৩৮৮ জনের প্রাণহানি ঘটে। জুন মাস থেকে সবচেয়ে বেশি জনের শনাক্ত ও মৃতু হয়েছে। সেই তুলনায় চলতি বছরের জুলাই মাসে আক্রান্ত ও মৃত্যু কিছুটা কমেছে। তবে করোনার ভ্যাকসিন (টিকা) গ্রহণকারীর সংখ্যা বহুগুণে বেড়েছে। 

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ জানান, গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৬ জন ও উপসর্গ নিয়ে ইয়োলোজোনে চিকিৎসাধীন অবস্থায়  ১ জন  মারা গেছে। মৃত ৭ জনের সকলেই নারী। করোনায় আক্রান্তদের ৪ জন রেডজোনে ও ২ জন আইসিইউতে মারা যান। তারা হলেন, যশোর সদর উপজেলার তালবাড়িয়া গ্রামের মোজেহার আলীর স্ত্রী হাসিনা বেগম(৫৮), ভেকুটিয়া গ্রামের ইউসুফ আলীর স্ত্রী নাজমা বেগম (৪০), চৌগাছা উপজেলার বড় খানপুর গ্রামের রাসেল মাহমুদের স্ত্রী ফজিলা বেগম (৬৫), ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বাদে ডিহি গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী আমেনা বেগম (৬৫), লক্ষিনামপুর গ্রামের কিতাব আলীর স্ত্রী রিজিয়া বেগম (৬০) ও মহেশপুর উপজেলার হাবিবুর রহমানের স্ত্রী শাহিদা বেগম (৫৬)। এছাড়া করোনা উপসর্গে মারা যান চম্পা বেগম (৩৪)। তিনি যশোর সদর উপজেলার জয়নগর গ্রামের জামির হোসেনের স্ত্রী।

সিভিল সার্জন অফিসের দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা ডা. রেহেনেওয়াজ জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টারে ৩০৮ টি নমুনা পরীক্ষায় ৯৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালসহ বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২১৮ জনের র‌্যাপিড এন্টিজেন পরীক্ষায় ৩৭ জনের শরীরে করোনার অস্তিত্ব মেলে। এছাড়া জিন এক্সপার্ট মেশিনে ৫ টি নমুনা পরীক্ষায় ১ জনের পজেটিভ শনাক্ত হয়। মোট ৫২১ টি নমুনায় শনাক্ত ১৩৫ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ৯১ জন, কেশবপুর উপজেলায় ৩ জন, ঝিকরগাছা উপজেলায়  ১০ জন, অভয়নগর উপজেলায় ৬ জন, মণিরামপুর উপজেলায় ৫ জন, বাঘারপাড়া উপজেলায় ৪ জন, শার্শা উপজেলায় ৪ জন ও চৌগাছা উপজেলায় ১২ জন রয়েছে। এছাড়া বৃহস্পতিবার যশোর জেলায় নতুন করে ৪ হাজার ৯৪ জন নারী পুরুষ করোনার টিকা গ্রহণ করেছেন বলে তিনি জানিয়েছেন। 

যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, ৫ আগস্ট পর্যন্ত যশোর জেলায় ১৯ হাজার ৪২৯ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ১৫ হাজার ৯৮২ জন। যশোরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও বাড়িতে মারা গেছেন ৩৬৮ জন। এছাড়া ঢাকায় ৬ জন খুলনায় ৭ জন ও সাতক্ষীরার হাসপাতালে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। সিভিল সার্জন আরও জানান, গত ১৩ দিনে জেলায় ৫৬ হাজার ১৮৭ জন নারী পুরুষ করোনার ভ্যাকসিন (টিকা) নিয়েছেন।  এরমধ্যে ৫ আগস্ট ৪ হাজার ৯৪ জন, ৪ আগস্ট ৫ হাজার ৫৬২ জন, ৩ আগস্ট ৪৯৬০ জন, ২ আগস্ট ৫ হাজার ২৭৭ জন, ১ আগস্ট ৫ হাজার ৫৭৪ জন, ৩১ জুলাই ৫ হাজার ৫শ’ জন, ৩০ জুলাই ৩ হাজার ২৪২ জন, ২৯ জুলাই ৩ হাজার ২৪২ জন, ২৮ জুলাই ৪ হাজার ৫৫৮ জন, ২৭ জূলাই ৪ হাজার ৯৯২ জন, ২৬ জুলাই ৪ হাজার ৯৩৯ জন, ২৫ জুলাই ৪ হাজার ১৭১ জন ও ২৪ জুলাই ৩ হাজার ৩১৮ জন।  যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টা পর্যন্ত রেডজোন ওয়ার্ডে ৮৮ জন ও ইয়োলোজোনে ২৬ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বর্তমানে হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গের রোগীর অনেকটা চাপ কমেছে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরও খবর