ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১১ কার্তিক ১৪২৮

মণিরামপুরে চরমপন্থি রফিকুল হত্যায় অভিযুক্ত ১১

Published : Saturday 19-June-2021 21:42:55 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ০৩:০৬:৫৩ am

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর মণিরামপুরের মধুপুর গ্রামের চরমপন্থির দলের সদস্য ইজিবাইক চালক রফিকুল ইসলাম হত্যা মামলায় ১১ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ না পাওয়ায় ২ জনের অব্যাহতির আবেদন করা হয়েছে চার্জশিটে। মামলার তদন্ত শেষে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) শিকদার মতিয়ার রহমান।

অভিযুক্ত আসামিরা হলো, মণিরামপুরের বাহাদুরপুর গ্রামের কাওছার আলীর ছেলে আবু মুছা, সিদ্দিকের ছেলে রায়হান, জলিল গাজীর ছেলে হাসান আলী, উত্তর বাহাদুরপুর গ্রামের আতিয়ার রহমানের ছেলে সেলিম, অভয়নগরের সরখোলা গ্রামের আনছার ওরফে আনোয়ারের ছেলে রজিব, ডাঙ্গামশিহাটি গ্রামের মহাদেব পাড়ের ছেলে সমিরন পাড়ে, নওয়াপাড়া অধীর ঘোষাইয়ের ছেলে শংকর, আয়নাল হক ভুইয়ার ছেলে হেলাল ভুইয়া, বুইকারা গ্রামের মহির শেখের ছেলে শেখ আরমান ওরফে সিডর আরমান, ফুলেরগাতি গ্রামের প্রহুদ মল্লিকের ছেলে প্রকাশ চন্দ্র মল্লিক, খুলনা দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের পালিত ছেলে রাকিব হোসেন বাপ্পি ওরফে শিপন।

মামলার তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, নিহত রফিকুল ইসলাম পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির সক্রিয় সদস্য ছিল। তিনি হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামি। ঘটনার কয়েক মাস আগে পার্টি থেকে বেরিয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপন করার উদ্দ্যোশে একটি ইজিবাইক কিনে ভাড়ায় চালত। নিজেরদের মধ্যে বিরোধের জের ধরে আসামিরা নব্য পূর্ব বাংলা কমিউস্টি পার্টি তৈরি করে এলাকায় চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্যকলাপ করত। রফিকুলের সাথে মুছার বিরোধের জের ধরে রফিকুরকে হত্যার পরিকল্পনা করে এবং তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যা মামলার তদন্তকালে পুলিশ হত্যার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের আটক ও হত্যা ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার করে। পরে তারেক আদালতে সোপর্দ করা হলে স্বীকারোক্তি জবানবন্দি দেয়। 

এ মামলার শেষে আটক আসামি দেয়া তথ্য ও সাক্ষীদের বক্তব্যে হত্যার সাথে জড়িত থাকার প্রমান পাওয়ায় ওই ১১ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ চার্জশিট দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ না পাওয়ায় আটক হাদিউজ্জামান রানা ও তাপস মন্ডলের অব্যাহতির আবেদন করা হয়েছে। চার্জশিট অভিযুক্ত চারজন বাদে সকল আসামিকে পলাতক দেখানো হয়েছে। 

প্রসঙ্গত. রফিকুল ইসলাম ইজিবাইক চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। ২০২০ সালের ৯ জুলাই সকালে তিনি ইজিবাইক নিয়ে ভাড়া চালানোর উদ্দ্যোশে বাড়ি থেকে বের হন। অভয়নগরে যাত্রী নামিয়ে তিনি মণিরামপুর ফেরাপথে সুন্দলীগামী পাকা রাস্তায় পৌঁছালে দুপুর সোয়া ১টার দিকে অপিরিচিত সন্ত্রাসীরা তার গতিরোধ করে গুলি ও জবাই করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। এব্যাপারে নিহতের স্ত্রী শিরিনা আক্তার বাদী হয়ে অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে মণিরামপুর থানায় হত্যা মামলা করেন।



আরও খবর