ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

বিএসএফ’র বাধায় সাতক্ষীরা সীমান্তে বেঁড়িবাধ নির্মাণ কাজ বন্ধ

Published : Sunday 05-September-2021 21:07:14 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ০৬:০৫:০৩ am

শাকিলা ইসলাম জুঁই, সাতক্ষীরা : ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ এর বাধায় সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বৈকারি ও কুশখালি ইউনিয়ন সীমান্ত ঘেষা ৮ কি:মি: বেঁড়িবাধ নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে গেছে। সীমান্তের ১৫০ গজ ভেতরে হওয়ায় আন্তজার্তিক সীমানা চুক্তির লংঘন বলে দাবি বিএসএফ সদস্যদের। সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত¡াবধায়নে বেঁড়িবাধটি নির্মাণে ৪ কোটি ৩০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। মে মাসে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স অসিম সিং কার্যাদেশটি পেয়ে মে মাসেই বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু করেন। চার কিলোমিটার বাঁধ তৈরির পর বিএসএফ এর বাধায় কাজ বন্ধ হয়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে বিজিবি ও বিএসএফ’র মধ্যে পতাকা বৈঠক করলেও কোনো সমাধান হয়নি। তাই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বাঁধ নির্মাণে ব্যবহৃত ১২টি স্কেভেটরসহ সকল জনবল ইতোমধ্যে সরিয়ে নিয়েছে। জনগুরুত্বপূর্ণ সীমান্তের এই বাঁধ নির্মাণ না হওয়ায় এলাকার কয়েক হাজার কৃষক  ও এলাকাবাসী বিপাকে পড়েছে। বাঁধ সংশিলিষ্ট এই বিলের জমির ফসল ফলানোও অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। ফলে ভারত ও বাংলাদেশ সরকারের কুটনৈতিক চ্যানেলের মাধ্যমে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের হস্তক্ষেপের মাধ্যমে বিষয়টি নিরসনের দাবি জানিয়েছেন  ভুক্তভোগীরা।

সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড ১ এর দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, বিগত অর্থ বছরে সাতক্ষীরা সদরের বিভিন্ন নদী ও খাল খনন এবং বাঁধ নির্মাণের জন্য ৪৭৫ কোটি ২৬ লাখ ১৬ হাজার টাকা বরাদ্দ আসে। বৈকারি সীমান্তের বাগধাড়ানি থেকে খইতলা হয়ে কুশখালি ছয়ঘরিয়া তলুইগাছা সীমান্তের ৮কি: ৩০০মিটার বেঁড়িবাধ পুননির্মাণের জন্য সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড ১, ৪ কোটি ৩০ লাখ টাকার টেন্ডার আহবান করে।

সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড ১ এর ইজিপি টেন্ডারে অংশ নিয়ে নেত্রকোনার মেসার্স অসিম সিং ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কার্যাদেশটি পেয়ে মে মাসেই বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু করেন। বাঁধের ১৪ ফুট উচ্চতা ও ১৪ ফুট বেড নির্মাণ ব্যায় বরাদ্দের ৪ কোটি ৩০ লাখ টাকার মধ্যে ১ কোটি ২৯ লাখ টাকা বিল উত্তোলন করেছেন সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।  কিন্ত ৪ কি:মি: বাঁধ নির্মাণের পর বিএসএফ’র বাধার মুখে পড়লে দুদেশীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি ও বিএসএফ কর্মকর্তারা একাধিকবার পতাকা বৈঠকে মিলিত হন।  কিন্তু কোন সুরাহা হয়নি। বিষয়টি সাতক্ষীরা ৩৩ বিজিবি’র কমান্ডিং অফিসার লে: কর্নেল আল মাহমুদ ১ মাস আগে বিজিবি’র উচ্চ পর্যায়ে অবহিত করেন। কোন নির্দেশনা না আসায় জনবল ও যন্ত্রাংশ সরিয়ে নিয়েছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।

কুশখালি ইউনিয়নের শিকড়ী গ্রামের ডা: শফিকুল ইসলাম বলেন, আংশিক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি অর্ধেক বিএসএফর বাধায় নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়েগেছে। বাঁধটি নির্মাণ না হলে এলাকার কয়েকটি বিলের কয়েক হাজার মানুষ ও কৃষক ব্যাপক ভাবে ক্ষতির মুখে পড়বে।

নেত্রকোনার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স অসিম সিং এর সত্ত¡াধিকারী অসীম কুমার সিং জানান, ভারত বাংলাদেশের সীমানা জটিলতায় অর্ধেক কাজ করার পর বিএসএফের বাধায় বাঁধটির নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে। অথচ ভারতীয় অংশে বিএসএফর কৈজুড়ি ক্যাম্প ১৫০ গজের মধ্যে পাকা ও স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করেছে। কিন্তু আমাদের দেশে অস্থায়ীভাবে বাঁধ সংস্কারে বাধা, এটি অত্যন্ত দু:খ জনক।

সাতক্ষীরা ৩৩ বিজিবি’র সিও লে: কর্নেল আল মাহমুদ জানান, বৈকারি এলাকায় বেঁড়িবাধ নির্মাণের কিছু অংশ শেষ হয়েছে। কিন্তু বাকী অংশের কাজ করতে বিএসএফ বাঁধা দিয়েছে। এবিষয়ে ইতোমধ্যে একাধিক বৈঠক করেও কাজ হয়নি। বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। নির্দেশনা পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাতক্ষীরা পনি উন্নয়ন বোর্ড ১এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের বলেন, বিএসএফ’র বাধার মুখে ভেড়িবাঁধ নির্মানে কাজটি বন্ধ রয়েছে । সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নির্দেশনা আসলে সীমান্তের বাঁধ নির্মাণ কাজ আবারো শুরু হবে।



আরও খবর