ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ সোমবার, ১৮ অক্টোবর , ২০২১ ● ২ কার্তিক ১৪২৮

বঙ্গবন্ধু মৎস্য ও কৃষিখাতের উপর নির্ভর করে উন্নয়নের রূপরেখা এঁকেছিলেন : শেখ আফিল উদ্দিন এমপি

Published : Thursday 09-September-2021 21:40:54 pm
এখন সময়: সোমবার, ১৮ অক্টোবর , ২০২১ ০০:০৩:০২ am

শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল: যশোর-১ (শার্শা) আসনের এমপি আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আশ্রয়হীন ক্ষুধায় জর্জরিত বাঙালি জাতির উন্নয়নের রূপরেখা এঁকেছিলেন মৎস্য ও কৃষি খাতের উপর নির্ভর করে। স্বপ্ন এঁকেছিলেন মৎস্য ও কৃষি খাতে পরিশ্রম করতে পারলে বাংলাদেশ একদিন সাবলম্বী হতে পারবে। আজ তিনি বেঁচে নেই কিন্তু বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নে দেখা সোনার বাংলাদেশ খাদ্যশস্যসহ মাছে মাছে ভরে গেছে। বিশে^র বুকে মাছ চাষে আমরা সেরা ৪র্থ স্থান দখল করে আছি। অচিরেই আমরা জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চলমান সূদৃঢ় চিন্তাচেতনা ও সঠিক দিকনির্দেশনায় ১ম স্থান অধিকার করতে পারবো বলে বিশ^াস করি।

বৃহস্পতিবার বিকেলে শার্শা উপজেলার উলাশি ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে চেয়ারম্যান আলহাজ আয়নাল হককে দেওয়া বিশাল গণসংবর্ধনার মঞ্চে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদানকালে একথা বলেন তিনি।

উলাশি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাহেব আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত “জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০২১’এ পাবদা, গুলশা, টেংরা ও মিশ্র মাছ চাষে উলাশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ আয়নাল হক মৎস্য অধিদপ্তর যশোর হতে সফলতার মেডেল পাওয়ায় এলাকার মানুষের বিশাল গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসের রাজনীতি করে না, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কায়িক পরিশ্রমের মাধ্যমে উন্নয়নে বিশ^াসী। যা উপলব্ধি করতে পেরে হায়েনার দল ৭১ পরবর্তী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশের উন্নয়ন ঠেকাতে তাঁকে নির্মমভাবে হত্যা করে। পিছনে ফেলে ক্ষুধার্ত বাঙালি জাতিকে তারা কুঁরে কুঁরে খেতে চেয়েছিলো কিন্তু মহান আল্লাহ রব্বুল আলামিনের অশেষ রহমতে জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনা কয়েক দফায় এদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ায় সে সব হায়েনার দল থেকে রক্ষা পায় বাঙালি জাতি। আজ সারাবিশে^ বাঙালি জাতি সম্ভাবনাময় উন্নত দেশের যাত্রী এবং গৌরব ও বীরের জাতিতে পরিচিতি লাভ করেছে।

এসময় এমপি শেখ আফিল উদ্দিন সকলকে নৌকার সাথে থাকার আহবান জানিয়ে বলেন, আওয়ামী লীগের কর্মীরা কখনও সন্ত্রাস, লুটতরাজ, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, দেশের সম্পদ ক্ষতি করে জনগণের হক নষ্ট করেনি, আর করবেও না। যার উদাহরণ হিসেবে আজ সারা বাংলাদেশের সাথে একযোগে শার্শা উপজেলার সকল ভূতুড়ে অন্ধকারাচ্ছন্ন পল্লীগুলো বিদ্যুতের আলোয় ঝলমল করছে। সেসাথে গ্রামের সেই চিরচেনা শুকনার সময়ের অতিরিক্ত ধুলাবালি আর বৃষ্টির সময় হাটুর উপর পর্যন্ত কাদাময় রাস্তাগুলো হয়েছে পিচঢালা পাকা। যার বাস্তব উদাহরণ টেনে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী অঙ্গিকার ছিলো প্রত্যেক গ্রামকে শহর করা হবে। হয়েছেও তাই। আজ শার্শা উপজেলার উলাশী ইউনিয়নের এইযে সভাস্থল বড়বড়ে গ্রাম, যা ছিলো এক সময়ের ভূতুড়ে পল্লী, সেখানে এখন শহরের ন্যায় সাজসজ্জিত।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, ঝিকরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুছা মাহমুদ, বাগআঁচড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ ইলিয়াছ কবির বকুল, গোগা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুর রশিদ, পুটখালী ইউপি চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামান, কায়বা ইউপি চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকু, শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার, বাহাদুরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, উলাশি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ইউপি সদস্য কবির হোসেন মেম্বর প্রমুখ।

গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক হাসনাইন খুরশিদ মিলন, সাংগঠনিক সম্পাদক আল আমিন রুবেলসহ উলাশি ইউনিয়ন পরিষদের সকল মেম্বর ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।