ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ সোমবার, ২৫ অক্টোবর , ২০২১ ● ৯ কার্তিক ১৪২৮

চাঁদখালীতে নৌকা প্রতীক পোড়ানো ও চশমার পোস্টার ছেড়ার অভিযোগ

Published : Saturday 11-September-2021 22:01:18 pm
এখন সময়: সোমবার, ২৫ অক্টোবর , ২০২১ ০৩:১৮:৪৫ am

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি: পাইকগাছার চাঁদখালী ইউনিয়নে বাঁশের চটা দিয়ে তৈরি নৌকা প্রতীক পোড়ানো ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর চশমার পোস্টার ছেড়ার ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাচন অফিসে থানায় পৃথক অভিযোগ হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

জানা যায়, উপজেলার চাঁদখালী ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. মুনছুর আলী গাজী ও স্বতন্ত্র চশমা প্রতীকের প্রার্থী শাহজাদা ইলিয়াস। দুজনের নির্বাচনী কার্যালয় শাহপাড়ার ফুলতলা নামক স্থানে। আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মুনছুর আলী গাজী অভিযোগ করেছেন, চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী আমেরিকা ফেরত শাহজাদা আবু ইলিয়াসের নেতৃত্বে শুক্রবার রাতে তার কর্মী সমর্থকরা মিছিল করে যাওয়ার পথে ত্রাস সৃষ্টি করে এ অগ্নি সংযোগ ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটিয়েছে। খবর পেয়ে শনিবার সকালে শত শত নৌকা প্রতীকের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা ঘটনাস্থলে জড়ো হয়ে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

এ ঘটনায় নৌকা প্রতীকের কর্মী দেবদুয়ার গ্রামের জালাল উদ্দীন আহম্মদের ছেলে জি এম হাবিবুল্লা হাবু বাদী হয়ে চশমা প্রতীকের কর্মী সমর্থদের মধ্যে বেলা গাজীর ছেলে মঞ্জুরুল গাজী, মোজাম গাজীর ছেলে রেজাউল গাজী, আক্তারুল গাজীর ছেলে রিপন গাজী, সুলতান গাজীর ছেলে বাবুল গাজী, জাফর গাজীর ছেলে আরিফ গাজী, লুৎফর মোড়লের ছেলে মনিরুল মোড়ল, গোলাম বারীর ছেলে টেনা গাজী, আকের আলীর ছেলে আবুল হোসেন, আবুল কালামের ছেলে ওবায়দুল্লাহসহ ১৫ ব্যক্তির নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। অপরদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহাজাদা ইলিয়াসের চশমা প্রতীকের অফিসের পোস্টার ছেড়া ও তাদের মারপিট করায় থানায় পৃথক অভিযোগ দেয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে চশমা প্রতীকের প্রার্থী শাহজাদা মোঃ আবু ইলিয়াস বলেন, আমি ও আমার কর্মীরা সরকারি দলের প্রার্থীর হুমকিতে রয়েছি। তিনি অরো বলেন, তদন্ত পূর্বক এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় অনার দাবি জানান। উভয় পক্ষ একে অপরের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

ওসি তদন্ত স্বপন রায় জানান, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইউএনও এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী বলেন, অভিযোগ পেয়েছি দুপক্ষের কাছে বিষয়টি শুনেছি ঘটনাটি আরও খতিয়ে দেখা লাগবে।