ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ● ১২ কার্তিক ১৪২৮

গণটিকা : যশোরে দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণকারী কমলো ৪ হাজার

Published : Tuesday 07-September-2021 22:39:59 pm
এখন সময়: বুধবার, ২৭ অক্টোবর , ২০২১ ২২:৩৮:০৪ pm

বিল্লাল হোসেন: মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) যশোর জেলায় ৫২ হাজার ৯২১ জন গণটিকা গ্রহণ করেছেন। এদের মধ্যে ২৮ হাজার ৩১৩ জন পুরুষ ও ২৪ হাজার ৬০৮ জন নারী রয়েছেন। এছাড়া গণটিকার পাশাপাশি আরও ৩ হাজার ৭০৬ জনকে নিয়মিত (রুটিন) টিকা প্রদান করা হয়েছে। এর আগে গত জেলায় ৫৭ হাজার ২২২ জন গণটিকা নিয়েছিলেন। প্রথম ডোজের চেয়ে দ্বিতীয় ডোজে ৪ হাজার ৩০১ জন কম টিকা নিয়েছেন। সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা ডা. রেহেনেওয়াজ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন ।

ডা. রেহেনেওয়াজ জানান, ৫২ হাজার ৯২১ টিকা গ্রহণকারীর মধ্যে যশোর পৌরসভায় ১ হাজার ৬৮০শ’ সদর উপজেলায় ৮ হাজার ৩৯০ জন , কেশবপুর উপজেলায়  ৫ হাজার ৪৫ জন, অভয়নগর উপজেলায় ৫ হাজার ৫৪০ জন, মণিরামপুর উপজেলায় ৯ হাজার ১৮৫ জন, বাঘারপাড়া উপজেলায় ৪ হাজার ৯০৩ জন, শার্শা উপজেলায় ৬ হাজার৩৭৮ জন, ঝিকরগাছা উপজেলায় ৬ হাজার ৬৩৭ জন ও চৌগাছা উপজেলায়  ৬ হাজার ১৬৩ জন রয়েছে। এক প্রশ্নে তিনি জানান, গণটিকায় দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণে ৪ হাজার ৩০১ জন বাদ পড়েছেন। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে। নির্দেশনা আসার পর বাদ পড়াদের টিকা প্রয়োগের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

যশোরের সিভিল সার্জন ডা. আবু শাহীন জানান, টিকা কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকে সুপারভিশন টিমের সদস্যরা বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এখনো পর্যন্ত কোন টিকা গ্রহণকারীর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর পাওয়া যায়নি। তিনি আরও জানান, মঙ্গলবার গণটিকা ও নিয়মিত টিকা গ্রহণকারীর সংখ্যা ৫৬ হাজার ৬২৭ জন। এরমধ্যে চিনের সিনোফার্মের ৫৫ হাজার ৯১৭ জন ও জাপানের এস্টাজেনেকা টিকা নিয়েছেন ৭১০ জন।

এদিকে সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘন্টায় যশোরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ১ জন মারা গেছেন। ৪১৩ টি নমুনা পরীক্ষায় ২৭  জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।এরমধ্যে সদর উপজেলায় ১৯ জন, অভয়নগর উপজেলায় ৪ জন ও  মণিরামপুর উপজেলায় ১ জন ও চৌগাছা উপজেলায় ৩ রয়েছেন। ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যশোর জেলায় ২১ হাজার ২৯৯ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ২০ হাজার ৮৫ জন। যশোরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও বাড়িতে মারা গেছেন ৪৬৮ জন। এছাড়া ঢাকা, খুলনা ও সাতক্ষীরার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনায় মারা গেছেন ৪৮৪ জন।

 



আরও খবর