ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর , ২০২১ ● ২ আশ্বিন ১৪২৮

কেশবপুরে করোনা: ১৬ মাসে ২৩ মৃত্যু, শনাক্ত ৬৩৩

Published : Sunday 01-August-2021 22:00:40 pm
এখন সময়: শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর , ২০২১ ১২:২২:৫০ pm

সিরাজুল ইসলাম, কেশবপুর  : কেশবপুরে গত ১৬ মাসে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬শ ৩৩ জনের। এ সময়ে মৃত্যু হয়েছে ২৩ জনের। এর মধ্যে জুলাই মাসে উপজেলায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ২শ ৯০ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের। 

কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানাগেছে কেশবপুর উপজেলায় করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেয়ার পরেও জনগনের নমুনা পরীক্ষার আগ্রহ খুব কম। যার কারণে করোনা রুগীর সংখ্যাও কমে গেছে। তবে সূত্র জানায়, দেশে করোনা মহামারি ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পাড়ার পর হতে গত ১৬ মাসে কেশবপুরে করোনা রুগী ছিল ৬শ ৩৩ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ৫শ ৭০ জন। গত ১৬ মাসে উপজেলায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২৩ জনের। এর মধ্যে গত জুলাই মাসে কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৬শ ২৬ জনের, করোনা রুগী ছিল ২৯০ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের। মৃত্যু ব্যক্তিরা হলো, কেশবপুর পৌর সভার সাহাপাড়ার শান্তাহ বিশ্বাস (২৯), বেলকাটি গ্রামের রোজিনা বেগম (৪৫), আওয়ালগাতী গ্রামের নসিমন বেগম (৭০), পাত্রপাড়া গ্রামের আবু হোসাইন সরকার (৭১), ব্রহ্মকাটি গ্রামের আনসার আলী (৫৫), নতুন মূলগ্রামের মাহমুদ উদ্দিন (৫৫), মির্জাপুর গ্রামের আব্দুল মোমিন মোড়ল (৫৫), মধ্যকুল গ্রামের শহিদুল ইসলাম গাজী (৬০) ও কেশবপুর পৌর সভার সাহাপাড়ার শক্তি অধিকারী (৬৫)।

কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স অধিদপ্তর কর্মকর্তা ডাঃ আলমগীর হোসেন বলেন, কেশবপুরে টিকা নেয়ার আগ্রহের হার খুব কম।এপর্যন্ত কেশবপুর উপজেলায় প্রায় ৩ লাখ মানুষের মধ্যে টিকা নেয়ার জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছে ২৫ হাজার ২৮ জন এবং টীকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১৪ হাজার ৮৬০ জন, দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৬ হাজার ৩০৫ জন। এদিকে রোববার হাসপাতালে ১৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হলেও তারমধ্যে করোনা পজিটিভ কোন রুগী ছিল না। কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা ইউনিটে গতকাল রোববার করোনা রুগী ভর্তি আছে ৫ জন।

কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডাঃ আলমগীর হোসেন আরো জানান করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য সরকার গত মাসের ২৩ তারিখ হতে কঠোর লকডাউন ঘোষণা দিয়ে জরুরী বিধি নিষেধ জারী করলেও জনসাধারণ বিধি নিষেধ উপেক্ষা করছে। যার কারণে করোনা মহামারি ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। স্থানীয় প্রশাসন, সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবির যৌথ টহল জোরদার করার পরেও মানুষ সচেতন হচ্ছে না। ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জরিমানার অর্থ অদায় করলেও জনগন খুব উদাসীন। বিশেষ করে কেশবপুর পৌরসভার শহরের ব্যবসায়ীরা কোন ভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে চাচ্ছে না যার কারণে মানুষ প্রতিদিন চহরপ ভীড় করছে। তবে স্বাস্থ্য নিভাগ উপজেলা ব্যাপী জনগনকে টিকা নেওয়ার জন্য সচেতনতা বাড়ানোর ব্যাপক ভূমিকা পালন করে আসছে। যার কারণে মানুষ প্রতিদিন হাসপাতালে টিকা নেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছে।

 



আরও খবর